default-image

করোনার এই সংকটে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের ভালো একটি সুখবর দিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ঘরোয়া ক্রিকেটে বেতনভুক্ত ক্রিকেটারদের বেতন বাড়িয়েছে পিসিবি।

গত বছর পিসিবি চুক্তিবদ্ধ প্রথম শ্রেণির সব ক্রিকেটারদের মাসিক বেতন নির্ধারণ করেছিল ৫০ হাজার রুপি। এ বছর সেটি সংশোধন করে খেলোয়াড়দের পাঁচটি শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে। ২০২০-২১ মৌসুমে ‘এ’ শ্রেণিতে রাখা হয়েছে ১০ খেলোয়াড়কে, যাদের মাসিক বেতন হবে দেড় লাখ রুপি। ‘এ’ শ্রেণিতে থাকা ৩৮ ক্রিকেটারদের মাসে বেতন পাবেন ৮৫ হাজার রুপি। ‘বি’ শ্রেণিতে ৪৮ ক্রিকেটার বেতন পাবেন ৭৫ হাজার রুপি। ‘সি’ শ্রেণিতে ৭২ খেলোয়াড়দের বেতন মাসে ৬৫ হাজার রুপি। আর ‘ডি’ শ্রেণির ২৪ ক্রিকেটারদের বেতন ৪০ হাজার রুপি।

বিজ্ঞাপন

এই বেতনের বাইরে জাতীয় টি-টোয়েন্টি কাপ ও পাকিস্তান কাপে ম্যাচ ফি ৪০ হাজার রুপি। প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট কায়েদ-ই আজম ট্রফিতে খেলোয়াড়েরা ম্যাচ ফি পাবেন ৬০ হাজার রুপি। অবশ্য আগের বছরের তুলনায় প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্টে ম্যাচ ফি ১৫ হাজার রুপি কমেছে। ম্যাচ ফি কমলেও মাসিক বেতন বাড়িয়ে সেটি ভালোভাবেই পুষিয়ে দিচ্ছে পিসিবি। পিসিবির হাই পারফরম্যান্স বিভাগের পরিচালক নাদিম খান বলেছেন, ‘২০২০-২১ মৌসুমের ঘরোয়া পঞ্জিকা চূড়ান্ত করার সময় আমরা শুধু সাদা বলের বৈশ্বিক টুর্নামেন্টেই চোখ রাখিনি, আমাদের ভাবনায় এটাও ছিল যে খেলোয়াড়দের চুক্তিতে উন্নতি আনতে হবে। যাতে খেলোয়াড়ের আর্থিকভাবে লাভবান হয়। তারা যেন নিজেদের ফিটনেস ও ফর্মে উন্নতি আনতে উৎসাহ বোধ করে। এতে করে জাতীয় দল ও ঘরোয়া ক্রিকেটের দলগুলোয় ভালো অবদান রাখতে পারে।’ ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে পাকিস্তানের নতুন ঘরোয়া মৌসুম।

default-image
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটারদের এই বেতন দেখে অবশ্য দীর্ঘশ্বাসই বাড়বে বাংলাদেশের বেশির ভাগ খেলোয়াড়ের। বর্তমান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রথম শ্রেণির চুক্তিতে আছেন ৯১ ক্রিকেটার। যারা তিন শ্রেণিতে বেতন পান ২৮ হাজার ৭৫০ টাকা, ২৩ হাজার ও ১৭ হাজার ২৫০ টাকা। গত বছর খেলোয়াড়দের আন্দোলনের পর প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্যাচ ফি বাড়িয়েছে বিসিবি, তবে সেটি এখনো ৭০ হাজার টাকার নিচে। ঘরোয়া ক্রিকেটের এক সিনিয়র খেলোয়াড় আফসোস করে বললেন, ‘শুধু পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটারদের বেতন কেন, ভারত-শ্রীলঙ্কার সঙ্গে তুলনা করলে আমরা অনেক পিছিয়ে।’

মন্তব্য পড়ুন 0