ইমরান খানের প্রিয়পাত্র হিসেবেই সবাই ওয়াসিম আকরামকে জানেন। আশি–নব্বই দশকে পাকিস্তান দলে ইমরান খানের ‘অস্ত্র’ হয়ে উঠেছিলেন তিনি। কিন্তু এত বছর পর ইমরান যখন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী, দেশের ক্রিকেট পরিচালনায় যখন একজন সাবেক ক্রিকেটারকে বিবেচনা করার চিন্তাভাবনা চলছে, তখন ইমরান কেন ওয়াসিম আকরামের নাম বাদ দেবেন?

জানা গেছে, এর মূল কারণ ওয়াসিম আকরামের ‘পরিষ্কার ইমেজ’ না থাকা, নব্বইয়ের দশকে ম্যাচ গড়াপেটা ও পাকিস্তান দলে নানা রকম অভ্যন্তরীণ দলাদলির সঙ্গে সাবেক এ বাঁ হাতি ফাস্ট বোলারের জড়িয়ে পড়া।

default-image

ওয়াসিম আকরাম নিজেই পিসিবির চেয়ারম্যান হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ‘নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’। পিসিবির একটি সূত্রের বরাতে তারা লিখেছে, এটা সত্যি যে ওয়াসিম আকরাম পিসিবির চেয়ারম্যান হতে চেয়েছিলেন। শুধু তা–ই নয়, তাঁর নামও আলোচনায় এসেছিল। কিন্তু ইমরান খান সোজাসাপটা জানিয়ে দেন, আকরামের চেয়ে রমিজ রাজাই এ পদের উপযুক্ত ব্যক্তি। রমিজ ব্যক্তি হিসেবে পরিষ্কার ভাবমূর্তির অধিকারী। তাঁর অতীতে কোনো বিতর্কিত ব্যাপারে জড়িয়ে পড়ার রেকর্ড নেই।

ক্রিকেট ছাড়ার পর আকরাম নানাভাবেই পাকিস্তান ক্রিকেটের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। তিনি পিসিবির ক্রিকেট কমিটির প্রভাবশালী সদস্য হিসেবেও কাজ করেছেন। এ মুহূর্তে অবশ্য তিনি তাঁর অস্ট্রেলিয়ান স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছেন।

পিসিবির বর্তমান চেয়ারম্যান এহসান মানির মেয়াদ শেষ হচ্ছে কিছুদিনের মধ্যেই। তাঁকেই প্রথমে এ দায়িত্ব চালিয়ে যেতে বলা হয়েছিল। কিন্তু স্বাস্থ্যগত কারণে মানি পিসিবির চেয়ারম্যান হিসেবে তাঁর মেয়াদ বাড়াতে আর আগ্রহী নন। এমন একটা অবস্থাতেই নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগের বিষয়টি আলোচিত হচ্ছে।

পিসিবির সূত্র টাইম অব ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানিয়েছে, প্রথমে ওয়াসিম আকরামের নাম তালিকার ওপরেই ছিল। সঙ্গে ছিল রমিজ রাজা ও সাবেক একজন সরকারি কর্মকর্তার নাম। কিন্তু নব্বইয়ের দশকের কুখ্যাত ম্যাচ গড়াপেটা কেলেঙ্কারির সঙ্গে নাম জড়িয়ে থাকায় আকরামের নাম প্রথমেই বাদ দিয়ে দেন ইমরান।

১৯৯৫ থেকে ২০০০ সালের মধ্যে ম্যাচ গড়াপেটায় নাম এলেও আকরামের বিরুদ্ধে প্রমাণসাপেক্ষ নির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ দাঁড় করা যায়নি। তবে ২০০০ সালে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনকে ‘সহযোগিতা’ না করার অপরাধে তাঁকে জরিমানা করা হয়েছিল।

এদিকে ওয়াসিম আকরাম নিজে অবশ্য এ সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। নিজের টুইটার হ্যান্ডলে তিনি এ সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়ে লিখেছেন, ‘দয়া করে ভুয়া সংবাদ ছড়াবেন না। নিজেদের সংবাদের সূত্রটা ঠিক করুন। টাইমস অব ইন্ডিয়া ভারতের অন্যতম শীর্ষ ও বিশ্বাসযোগ্য সংবাদমাধ্যম। এমন ভিত্তিহীন সংবাদ সে ভাবমূর্তির ক্ষতি সাধন করে। পিসিবির চেয়ারম্যান পদটা একটা বিশেষায়িত পদ আর আমি এ পদ নিয়ে কখনোই আগ্রহী ছিলাম না। আল্লাহকে ধন্যবাদ, আমি এ মুহূর্তে যেখানে আছি, যা আছি, সেটি নিয়ে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন