টিম পেইন সিডনি টেস্টের সবচেয়ে আলোচিত চরিত্র।
টিম পেইন সিডনি টেস্টের সবচেয়ে আলোচিত চরিত্র। ছবি: এএফপি

বেচারা টিম পেইন!

উপমহাদেশের কোনো দলের অধিনায়ক হলেও না হয় মিলিয়ে নেওয়া যেত। অধিনায়ককে শূলে চড়ানো উপমহাদেশে ডাল-ভাত। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের সংস্কৃতি তো আলাদা। খুব হিসেব কষে যেমন নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হয়, তেমনি দল কিংবা অধিনায়ক খারাপ করলেও পাশে থাকেন সবাই। পোড় খেতে খেতে এভাবেই ইস্পাতদৃঢ় মানসিকতা গড়ে ওঠে অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়কদের।

কিন্তু পেইনের ক্ষেত্রে ব্যথাটাই লাগছে বেশি। সিডনি টেস্টে তাঁর বাজে পারফরম্যান্স কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না অস্ট্রেলিয়া।

তিন-তিনটি ক্যাচ ফেলেছেন, যা আদতে ঘুরিয়েছে ম্যাচের মোড়—টেস্ট ড্র করে ভারত। ক্যাচ ফেলে এবং মাঠে দুর্বল নেতৃত্ব দিয়েও অবশ্য মুখ বন্ধ থাকেনি পেইনের। ভারতের ব্যাটসম্যানদের বিশ্রী সব স্লেজিং করেছেন। এ জন্য জরিমানাও গুনতে হয়েছে ম্যাচ ফির ১৫ শতাংশ অর্থ।

সব মিলিয়ে এই টেস্টে পেইনকে দেখে সেই প্রবাদটি অনেকের মনে হতে পারে, ‘ঘটি ডোবে না, নামে তালপুকুর!’

বিজ্ঞাপন

তা এই ‘তালপুকুর’-এর টগবগানি নিয়েই খেপেছেন ইয়ান চ্যাপেল। অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক এবং খ্যাতিমান এই ক্রিকেট বিশ্লেষক পেইনকে সোজাসাপ্টাই বলেছেন, ‘মুখটা বন্ধ রেখে নিজের কাজটা করো।’

default-image

বাংলাদেশ সময় আগামীকাল শুক্রবার ভোরে ব্রিসবেনে শুরু হবে সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্ট। সিরিজ আপাতত ১-১ ব্যবধানে অমীমাংসিত। সিরিজ জিততে পেইনকে তাঁর দায়িত্বও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন চ্যাপেল, টেস্ট অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক হিসেবে তাঁর ‘কথা বলার চেয়ে’ বেশি গুরুত্বপূর্ণ ‘চিন্তাভাবনা করা’।

অস্ট্রেলিয়ার ওয়াইড ওয়ার্ল্ড অব স্পোর্টসকে ইয়ান চ্যাপেল বলেন, ‘বাকি খেলোয়াড়দের মতো তোমারও (পেইন) মুখ বন্ধ রেখে নিজের কাজটা করা উচিত। কেন এটা করা উচিত, তার ধ্রুপদি উদাহরণ ছিল এটা (সিডনি টেস্ট)। জানি না অশ্বিনের সঙ্গে সে কী করার চেষ্টা করছিল। কিন্তু তার কিছুক্ষণ পরই ক্যাচ ফেলাটা তার চুপ থাকার ভালো কারণ হতে পারে।’

পেইনের প্রতি চ্যাপেলের ভাষ্যটা সোজাসাপ্টা, ‘উইকেটরক্ষণের কাজটা এমনিতেই কঠিন। সঙ্গে টেস্ট অধিনায়ক হলে তো কথাই নেই। তাই এত কথা না বলে চিন্তাভাবনা বাড়ানো উচিত। কথাটা শুধু টিম পেইনের প্রতি নয়; আধুনিক ক্রিকেটের সব খেলোয়াড়ের প্রতি। অনেকে বলবেন, এটা খেলারই অংশ। কিন্তু আমি মনে করি এটা খেলার বাইরে।’

default-image

পেইনকে অবশ্য বুদ্ধিমান বলেই মনে করেন চ্যাপেল, ‘পেইন কিন্তু বুদ্ধিমান ও চটপটে ছেলে। ক্যাচ ফেলার পর সে হয়তো ভেবেছে, কথা বলা বন্ধ করে আমি কেন উইকেটরক্ষণে মনোযোগ দিচ্ছি না? সে ভালো অধিনায়ক। নেতৃত্ব দেওয়ার পথে অনেকেই ভুল করে।’

সিডনি টেস্টে ঋষভ পন্তের দুটি ক্যাচ ছাড়েন পেইন। পরে ৯৭ রান করেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান। উইকেট কামড়ে পড়ে থেকে ড্র আদায় করে নেওয়া হনুমা বিহারির ক্যাচও ছাড়েন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক। এ ছাড়া হনুমা-অশ্বিন জুটির ব্যাটিংয়ের সময় স্লেজিং করেন তিনি। অশ্বিনকে পেইন বলেছিলেন, ভারতে তাঁর বন্ধুসংখ্যা অশ্বিনের চেয়ে বেশি।

ক্যাচ ছাড়ার পর পেইনকে এ নিয়ে খোঁচাও মারেন রিকি পন্টিং। ফক্স স্পোর্টসের কাভারেজে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এ অধিনায়ক বলেছিলেন, ‘ক্যাচ ছাড়ার পর ভারতে তার বন্ধুসংখ্যা অবশ্যই বাড়বে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন