default-image

সময় এখন প্যাট কামিন্সের। দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া ভারতের কাছে নাস্তানাবুদ হলেও, এই পেসার জানিয়ে দিয়েছেন, বর্তমান বিশ্বে কেন তিনি অন্যতম সেরাদের একজন। টেস্ট সিরিজের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হয়ে সিরিজ-সেরাও হয়েছেন। এবার তিনি হয়ে গেলেন আইপিএলের সবচেয়ে ধনী ক্রিকেটার।

গত ২০ তারিখে আইপিএলের বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি পাকাপাকিভাবে জানিয়ে দিয়েছে, আগামী মৌসুমের জন্য তারা কাকে দলে রাখতে চায়, কাকে চায় না। গত মৌসুমে সাড়ে ১৫ কোটি রুপির বিনিময়ে কলকাতা নাইট রাইডার্সে নাম লেখানো প্যাট কামিন্সকে আদৌ শাহরুখ খানের দল ধরে রাখে কি না, একটু হলেও সন্দেহ ছিল। ২০২০ আইপিএলে ১৪ ম্যাচে ১২ উইকেট পাওয়া কামিন্সের পারফরম্যান্স সব মিলিয়ে ঠিক ‘কামিন্স-সুলভ’ ছিল। বিশেষ করে যে খেলোয়াড়কে সাড়ে ১৫ কোটি রুপি বেতন দেওয়া হচ্ছে, তাঁর কাছ থেকে আরও একটু বেশিই প্রত্যাশা ছিল। কেকেআরও প্লে অফ খেলতে পারেনি। এবার তাই কামিন্সকে নিয়ে সন্দেহ ছিল, তাঁকে আদৌ রেখে দেওয়া হবে কি না! শেষ পর্যন্ত কলকাতার ফ্র্যাঞ্চাইজি অস্ট্রেলীয় তারকার ওপর আস্থাই রেখেছে।

default-image
বিজ্ঞাপন

টিকে যাওয়ায় আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন কামিন্স। নগদ-নারায়ণের হিসেবেই। গতবারের মতো এবারও সাড়ে ১৫ কোটি রুপি পকেটে ভরতে চলেছেন এই তারকা, যা মহেন্দ্র সিং ধোনি কিংবা বিরাট কোহলিদের চেয়েও বেশি। ধোনিকে চেন্নাই সুপার কিংস দিচ্ছে ১৫ কোটি রুপি, ওদিকে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর কাছ থেকে কোহলিও পাচ্ছেন একই পরিমাণ অর্থ। ফলে গতবারের মতো এবারও আইপিএলের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড়ের তকমাটা কামিন্সের কাছেই থাকছে।

বিদেশি তারকাদের মধ্যে কামিন্স ছাড়াও কলকাতা নাইট রাইডার্স ধরে রেখেছে আন্দ্রে রাসেল, সুনীল নারাইন, লকি ফার্গুসন, এউইন মরগান, টম সেইফার্টকে। ছেড়ে দিয়েছে ইংলিশ ব্যাটসম্যান টম ব্যান্টন ও অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার ক্যামেরন গ্রিনকে। নিলামে মাত্র ১০.৮৫ কোটি রুপি নিয়ে নামবে কলকাতা। আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর মধ্যে এত কম টাকা নিয়ে নিলামে নামবে আর মাত্র একটা দল।

দেখা যাক, এমন পরিকল্পনা নিয়ে আইপিএলের নতুন মৌসুমে কেমন করে শাহরুখ খানের দল!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন