default-image

২৯৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ৮ রানেই ২ উইকেট হারায়। দক্ষিণ আফ্রিকাকে শুরুর ধাক্কাটা দেন অ্যানিয়া শ্রাবসোল। লিজেলা লি ফেরেন ২ রানে, লরা উলভারডট আউট হন শূন্য রানে। এরপর সুনে লুস আর লারা গুডাল ফিরে গেলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি চলে যায় ইংলিশ মেয়েদের হাতে। আসলে দক্ষিণ আফ্রিকা সাধারণ লড়াইটাও করতে পারেনি। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ১৩৭ রান দূরেই থামতে হয় তাদের।

২০১৭ সালে এই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই ডার্বিতে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে হেরেছিল প্রোটিয়ারা। আজও সেমিফাইনালের চাপ তারা নিতে পারেনি বলেই মনে হয়েছে। শতরান করা ইংলিশ ওপেনার ড্যানি ওয়াটের ক্যাচই তারা ছেড়েছে পাঁচবার। তাঁর ইনিংস ২২ রানেই থামতে পারত। এরপর থামতে পারত ৩৬ রানে। ওয়াট ফিরতে পারতেন ৭৭ রানেও। কিন্তু তা হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার মেয়েদের ক্যাচ মিসের মহড়ার কারণে।

default-image

শতরান পেরোনোর পরও ওয়াটের ক্যাচ দুইবার ছেড়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ফিল্ডাররা। এর একটি ১১৬ রানে, অন্যটি ১১৭ রানের মাথায়। পঞ্চম উইকেট জুটিতে ওয়াট-ডাঙ্কলি ১১২ বলে ১১৬ রান যোগ করেন। এর আগে ওয়াট দ্বিতীয় উইকেটে হিদার নাইটের সঙ্গে গড়েন ৫৬ বলে ৪১ রানের জুটি। চতুর্থ উইকেট জুটিতে অ্যামি জোনসের সঙ্গে ওয়াটের জুটি ছিল ৫১ বলে ৪৯ রানের। ওয়াট ১২৫ বলে ১২৯ রান করেন। তাঁর ইনিংসে ছিল ১২টি বাউন্ডারি। এটি মেয়েদের ওয়ানডে বিশ্বকাপে ওয়াটের প্রথম শতরান

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন