default-image

গতকাল পাকিস্তানের ক্রিকেট বোর্ড আগামী ১২ মাসে পাকিস্তানের ছেলেদের ও মেয়েদের দলের সামনে কী কী টুর্নামেন্ট ও সিরিজ আছে, সেটির তালিকা ঘোষণা করেছে। বাবর আজম, মোহাম্মদ রিজওয়ান, শাহিন শাহ আফ্রিদিদের জন্য দারুণ ব্যস্ত এক সূচিই অপেক্ষায়। ব্যস্ততার মধ্যেই নিউজিল্যান্ড আর ইংল্যান্ডকে আতিথ্য দেবে পাকিস্তান।

এর মধ্যে ইংল্যান্ড শুধু একবার নয়, এক মাসের ব্যবধানে দুবার যাবে পাকিস্তানে। সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে সাতটি টি-টোয়েন্টির সিরিজ খেলবে একবার পাকিস্তান যাবে ইংলিশরা, নভেম্বর-ডিসেম্বরে আবার যাবে তিনটি টেস্ট খেলতে।

default-image

দুই টেস্ট ও তিন ওয়ানডের সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ড দল পাকিস্তানে যাবে আগামী ডিসেম্বরে। এই দুই দলের বাইরে পাকিস্তানের মাটিতে দুবার আলাদা দুটি সিরিজ খেলতে যাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজও। জুনে যাবে তিনটি ওয়ানডে খেলতে, আগামী বছরের জানুয়ারিতে তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলতে।

সব মিলিয়ে ব্যস্ত এই ১২ মাসে পাকিস্তানের ছেলেদের দল ৭টি টেস্ট, ১৭টি ওয়ানডে ও অন্তত ২৫টি টি-টোয়েন্টি খেলবে। অন্তত কেন? এ সময়ে যে এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও আছে। সেখানে পাকিস্তানের গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলোকেই এখানে হিসাবে নেওয়া হয়েছে। এরপর কতটুকু যাবেন বাবর-রিজওয়ানরা, সে তো এখন বলার উপায় নেই!

default-image

আইসিসির টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ ৭টি টেস্ট হবে তিন দলের বিপক্ষে—ইংল্যান্ড (৩ টেস্ট) ও নিউজিল্যান্ডের (২ টেস্ট) বাইরে অন্য দেশটি শ্রীলঙ্কা (২ টেস্ট)। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজটি তাদের মাটিতে গিয়ে খেলবে পাকিস্তান।

১৭ ওয়ানডের ১২টি ওয়ানডে সুপার লিগের অংশ—ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের মাটিতে, এর বাইরে দুটি সিরিজ শ্রীলঙ্কা ও নেদারল্যান্ডসের মাটিতে। বলা বাহুল্য, চারটি সিরিজের প্রতিটিতেই ম্যাচ তিনটি করে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন