default-image

২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে এগোচ্ছে বাংলাদেশ দল। শুধু বাংলাদেশ দল কেন, সব দলই এখন এগোচ্ছে অক্টোবরে হতে যাওয়া ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু হতেই যেখানে বেশ দেরি, এর মধ্যে আইসিসি জানিয়ে দিয়েছে ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপ্রক্রিয়ার নিয়ম। এ

বাছাইয়ের নিয়ম কিছুটা বদলছে আইসিসি। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুযোগ পেতে র‍্যাঙ্কিংকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পুরোপুরে সেটি হচ্ছে না। এটা ঠিক, যে ৮টি দল সরাসরি ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে খেলছে তারা ২০২১ বিশ্বকাপও খেলবে সরাসরি। ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে হলে বাকি দলগুলোর হিসাবটা হবে একটু অন্যরকম। আইসিসি পাঁচটি মহাদেশকে ১১টি অঞ্চলে ভাগ করেছে। ১১টি আঞ্চলিক বাছাইপর্ব থেকে বৈশ্বিক বাছাইপর্বে সুযোগ পাবে আটটি দল। বৈশ্বিক বাছাইপর্বে সরাসরি খেলবে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুযোগ না পাওয়া দলগুলোর মধ্যে র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ চারটি দল জিম্বাবুয়ে, নেপাল, আরব আমিরাত ও হংকংও । ২০২০ সালে ১ জানুয়ারি র‍্যাঙ্কিংক্রম অনুসারে সুযোগ পেয়েছে ওই চারটি দল।

এই আট দলের সঙ্গে বাছাই খেলতে হবে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভে উঠতে ব্যর্থ হওয়া চারটি দলকেও। বাংলাদেশকে সতর্ক থাকতে হচ্ছে এখানেই। আগামী অক্টোবরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত না করতে পারলে খেলতে হবে বৈশ্বিক বাছাইপর্ব। বৈশ্বিক বাছাইপর্ব হবে আগামী বছরের মার্চ থেকে জুলাইয়ের মধ্যে।

২০২১ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আয়োজন করার কথা ছিল ভারতের। আইসিসি ২০১৮ সালে ২০২১ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির বদলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়। অষ্টম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর সম্ভাব্য সময় আগামী বছরের অক্টোবর-নভেম্বর।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0