default-image

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পূর্ণ শক্তির দলে খেলেন কে কে? প্রশ্নের উত্তরে সবার প্রথমে ক্রিস গেইল, কাইরন পোলার্ড, আন্দ্রে রাসেল, শাই হোপ, জেসন হোল্ডার, ডোয়াইন ব্রাভো, নিকোলাস পুরান, আন্দ্রে ফ্লেচারদের নামই আসবে।

কিন্তু সর্বশেষ বাংলাদেশ সফরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে তাদের কাউকে দেখা যায়নি। এনক্রুমা বোনার, কাইল মেয়ার্স, জার্মেইন ব্ল্যাকউড, জোমেল ওয়ারিক্যানদের মতো একগাদা আনকোরা খেলোয়াড়কে বাংলাদেশে এনে টেস্ট সিরিজ জিতে গেছে তারা। আর বাংলাদেশ অধ্যায় শেষ করে শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য পূর্ণ শক্তির দল গঠন করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

লঙ্কানদের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে তিন ওয়ানডে, তিন টি-টোয়েন্টি ও দুই টেস্টের দীর্ঘ সিরিজ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সে সিরিজের জন্য ঠিকই শক্তিশালী দল ঘোষণা করেছে তারা।

বাংলাদেশ সফরে পূর্ণ শক্তির দল না আনায় বেশ আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এমনকি বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক নিজের হতাশাও প্রকাশ করেছিলেন প্রতিপক্ষকে পুরো শক্তির না পেয়ে।

যদিও টেস্ট সিরিজের দুই ম্যাচেই হেরে বসে মুমিনুলের দল। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের শক্তিশালী দল না নিয়ে আসার হতাশাটা অন্তত লঙ্কানদের করতে হবে না।

বিজ্ঞাপন

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডের নেতৃত্ব দেবেন কাইরন পোলার্ড। ২০১৯ সালের পর এই প্রথম জাতীয় দলে ফিরছেন ক্রিস গেইল। পোলার্ডের সহ–অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান নিকোলাস পুরান।

ওদিকে ওয়ানডেতে পোলার্ডের সহ–অধিনায়ক ব্যাটসম্যান শাই হোপ। প্রথমবারের মতো দলে ডাক পেয়েছেন অফ স্পিনার কেভিন সিনক্লেয়ার। টি-টোয়েন্টি দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন স্পিনার আকিল হোসেন।

default-image

যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রধান নির্বাচক রজার হার্পার পূর্ণ শক্তির দল ঘোষণা করার পেছনে কারণে হিসেবে বিশ্বকাপের প্রস্তুতির কথাই বলেছেন, ‘সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে আমরা সবচেয়ে শক্তিশালী দল নির্বাচন করার চেষ্টা করছি। আর সে লক্ষ্যেই এই সুযোগে আমরা এমন এক দল নির্বাচন করেছি, যে দলটা নিয়ে ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করা যায়। সম্প্রতি কিছু টুর্নামেন্টে ক্রিস গেইল দুর্দান্ত খেলেছেন, তাই আমাদের নির্বাচক কমিটি মনে করেছে এখনো ও আমাদের দলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। ফিদেল এডওয়ার্ডসকে নেওয়া হয়েছে বোলিংয়ের শক্তি বাড়ানোর জন্য।’

বাকিদের দলে নেওয়ার পেছনের কারণও ব্যাখ্যা করেছেন হার্পার, ‘জেসন হোল্ডার সীমিত ওভারের ফরম্যাটে অলরাউন্ডার হিসেবে নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করেছে।

কয়েকটা সিরিজ হাতছাড়া করার পর ও দলে এলে দলের অভিজ্ঞতা ও গভীরতা বাড়বে আরও। আকিল হোসেন বাংলাদেশের বিপক্ষে বেশ ভালো খেলেছে, সিপিএলেও ওর পারফরম্যান্স দুর্দান্ত।

২০১৯ সালের সুপার৫০ কাপে কেভিন সিনক্লেয়ার আমাদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল, এরপর থেকে সিপিএলে সে বেশ আঁটসাঁট বোলিং করে যাচ্ছে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের টি-টোয়েন্টি দল: কাইরন পোলার্ড, ক্রিস গেইল, জেসন হোল্ডার, নিকোলাস পুরান, ফাবিয়ান অ্যালেন, ডোয়াইন ব্রাভো, ফিদেল এডওয়ার্ডস, আন্দ্রে ফ্লেচার, আকিল হোসেন, এভিন লুইস, ওবেদ ম্যাককয়, রোভম্যান পাওয়েল, লেন্ডল সিমন্স, কেভিন সিনক্লেয়ার।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে দল: কাইরন পোলার্ড, শাই হোপ, নিকোলাস পুরান, জেসন হোল্ডার, ফাবিয়ান অ্যালেন, ড্যারেন ব্রাভো, আকিল হোসেন, আলজারি জোসেফ, এভিন লুইস, কাইল মেয়ার্স, জেসন মোহাম্মদ, রোমারিও শেফার্ড, কেভিন সিনক্লেয়ার।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন