তৃতীয় দিনের শুরুটা বাংলাদেশের জন্য ছিল হতাশার। দ্বিতীয় দিন শেষ করা টেলর ও কাইতানোর জুটি অবিচ্ছিন্ন ছিল প্রথম ঘণ্টার পরও। প্রথম ঘণ্টায় আগের দিনের স্কোরের সঙ্গে আরও ৬০ রান যোগ করেছিল জিম্বাবুয়ে, সেটাও মাত্র ১৪ ওভারে।

দিনের প্রথম ওভারটা মেডেন দিয়ে শুরু করেছিলেন ইবাদত হোসেন। শুরুতে আঁটসাঁট বোলিং করলেও পরে বাউন্ডারি দিয়েছেন বেশ কয়েকটি। প্রথম ঘণ্টায় টেলর ও কাইতানো মিলে মেরেছেন মোট আটটি বাউন্ডারি, ৭ চারের সঙ্গে একটি ছয় হয়েছে এ সময়ে।

দিনের ষষ্ঠ ওভারে সাকিব আল হাসানকে এনেছিলেন মুমিনুল হক। তাঁর দ্বিতীয় বলেই লং-অন দিয়ে ছয় মেরেছেন টেলর। তাঁর ফিফটিও এসেছে সে শটে। মাত্র ৫৮ বলেই বাংলাদেশের বিপক্ষে তৃতীয় ফিফটি হয়ে গেল তাঁর, টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি তাঁর ১১তম।

ক্যারিয়ারে ৬ সেঞ্চুরির পাঁচটিই টেলর করেছেন বাংলাদেশের বিপক্ষে, ষষ্ঠ সেঞ্চুরির দিকেও এগোচ্ছিলেন। তবে মিরাজকে আড়াআড়ি একটা আলগা শট খেলে ফিরতে হয়েছে তাঁকে। ৯২ বলে ৮১ রান করে স্কয়ার লেগে বদলি ফিল্ডার ইয়াসির আলীর হাতে ধরা পড়েছেন জিম্বাবুয়ের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক।

টেলর ফিরলেও জিম্বাবুয়েকে টানছেন কাইতানো ও মায়ার্স। অভিষেকে ফিফটি পেয়ে গেছেন কাইতানোও। ১৫৯ বলে ফিফটি পাওয়া কাইতানো এক প্রান্ত ধরে রেখেছেন। মাত্র ষষ্ঠ জিম্বাবুইয়ান ওপেনার হিসেবে অভিষেকেই ফিফটি পেলেন তিনি। ওদিকে টেলরের পর ইতিবাচক ক্রিকেটের বিজ্ঞাপন করছেন মায়ার্স। ২৭ বলের ইনিংসে একটি চারের সঙ্গে মেরেছেন একটি ছয়।