বাংলাদেশের বিপক্ষে আজ কী করতে হবে, জানে দক্ষিণ আফ্রিকা

শেষ ওয়ানডের আগে আশাবাদী কাইল ভেরেইনাছবি: এএফপি

নিজেদের মাটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে এমন অবস্থায় আগে কখনোই পড়েনি দক্ষিণ আফ্রিকা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচটা হয়ে দাঁড়িয়েছে সিরিজ নির্ধারণী। যে জিতবে, সে-ই সিরিজজয়ী। সিরিজ জিতে যেতে পারে বাংলাদেশও। এক-এক নতুন অভিজ্ঞতা দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য।


২০১৫ সালে প্রায় একই অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছিল প্রোটিয়াদের। বাংলাদেশ সফরে এসে প্রথম ওয়ানডেটা জেতার পর বাংলাদেশ জিতে যায় দ্বিতীয়টি। তৃতীয় ওয়ানডেতে এসে সিরিজ জয় নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। অমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে সেবারই প্রথম পড়েছিল তারা।

প্রথম ওয়ানডেতেই জিতেছিল বাংলাদেশ
ছবি: এএফপি

শেষ ম্যাচটি বাংলাদেশ খুব সহজে জিতে বড়সড় এক ধাক্কাই দিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকাকে।


এবার নিজেদের দেশের মাটিতে সেই একই পরিস্থিতি। সেঞ্চুরিয়নে প্রথম ওয়ানডেতে হেরে স্বাভাবিকভাবেই হকচকিয়ে গিয়েছিল প্রোটিয়ারা। জোহানেসবার্গের ‘গোলাপি’ ওয়ানডেটা সহজে জিতে অবশ্য সেই হতভম্ব ভাব খানিকটা কাটিয়েছে। কিন্তু সিরিজ জয়ের অনিশ্চয়তা সেঞ্চুরিয়নের তৃতীয় ওয়ানডের আগে দক্ষিণ আফ্রিকাকে যে যথেষ্ট ভাবাবে, সেটি না বললেও চলছে।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সমতা ফিরিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা
ছবি: এএফপি

ম্যাচটি কেবল সিরিজের ব্যাপারেই গুরুত্বপূর্ণ নয়, আইসিসি ওয়ানডে লিগে নিজেদের অবস্থান ওপরে তোলার জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। তাদের অবস্থান এ মুহূর্তে নবম। এমনিতেই সবশেষ ১২ ম্যাচে মাত্র ৪টিতে জিতেছে তারা। সিরিজ জয়ের পাশাপাশি পয়েন্টের হিসাবটাও তাদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ।


দক্ষিণ আফ্রিকা দল এসব নিয়ে ভাবছে না, কথাটা মিথ্যা। প্রোটিয়াদের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান কাইল ভেরেইনা জানিয়েছেন, পরিস্থিতিটা দক্ষিণ আফ্রিকা দলের সবাই অনুধাবন করতে পারছেন ঠিকই। কিন্তু এ নিয়ে দলে আলোচনার আধিক্য নেই, ‘আমাদের জন্য ম্যাচটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের জন্য আসলে সব ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা নিশ্চিত করতে চাই, প্রতিটি ম্যাচের আগে যেন আমরা সম্ভব সেরা অবস্থানে থাকি। আমাদের এখনো অনেক ম্যাচ বাকি (ওয়ানডে লিগে), এগুলোতে ভালো করতে পারলে বিশ্বকাপে সরাসরি অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে পারব বলে আশা করি। এসব দলের সবাই জানে, বোঝে। আমরা সবাই জানি, আমাদের কী করতে হবে।’

তৃতীয় ওয়ানডেতে আজ মুখোমুখি দক্ষিণ আফ্রিকা ও বাংলাদেশ
ছবি: এএফপি

বাংলাদেশ সিরিজের আগেই দক্ষিণ আফ্রিকার আইপিএলগামী ক্রিকেটারদের নিয়ে অনেক আলোচনা-বিতর্ক হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে খেলা কিংবা না খেলার বিষয়টি ছেড়ে দিয়েছিল ক্রিকেটারদের ওপরই। কুইন্টন ডি কক, কাগিসো রাবাদা, লুঙ্গি এনগিডি, মার্কো ইয়ানসেন, এইডেন মার্করামদের মতো ক্রিকেটাররা ওয়ানডে সিরিজে খেলেছেন। তবে আগামী সপ্তাহে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট সিরিজে তাদের পাচ্ছে না দক্ষিণ আফ্রিকা।

প্রশ্ন উঠছে, দেশের হয়ে খেলাটা আইপিএলের চেয়ে গৌণ হয়ে পড়েছে কি না। ভেরেইনা অবশ্য ব্যাপারটি মানতেই চান না। তাঁর মতে, রাবাদা, ডি ককদের মতো ক্রিকেটারদের যে দেশের প্রতি প্রতিশ্রুতির অভাব নেই, সেটি প্রমাণিতই, ‘দ্বিতীয় ম্যাচে ডি কক ও রাবাদা যেভাবে খেলেছে, সেটি প্রমাণ করে, দেশের হয়ে খেলার ব্যাপারে তাদের প্রতিশ্রুতির কোনো অভাব নেই। এমনকি আইপিএল সামনে রেখেও তারা পুরো মনোযোগ দেশের হয়ে খেলাতে নিবদ্ধ করেছে। আজ সেঞ্চুরিয়নে তৃতীয় ম্যাচ জিতেই সিরিজটা নিজেদের করতে চায় তারা। আমি কখনোই মনে করি না, তাদের মধ্যে দেশের প্রতি দায়বদ্ধতার বিন্দুমাত্র অভাব আছে।’