বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

কায়েদে আজম ট্রফিতে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে দলে জায়গা হয়েছে ইমামের। প্রথম শ্রেণির এ টুর্নামেন্টে ৫ ইনিংসে ৪৮৮ রান করেছেন এ বাঁহাতি, এর মধ্যে আছে অপরাজিত ডাবল সেঞ্চুরিও। ২০১৯ সালে অ্যাডিলেডে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টটি খেলেছিলেন ইমাম।

অন্যদিকে বিলাল ৫ টেস্ট ক্যারিয়ারের সর্বশেষটি খেলেছিলেন ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে, আবুধাবিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সর্বশেষ ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপে আঙুলে চোট পাওয়া ইয়াসির এখনো সেরে ওঠেননি বলে দুয়ার খুলেছে বিলালের। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) জানিয়েছে, বাংলাদেশ স্কোয়াডে থাকা বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের কারণে নেওয়া হয়েছে বিলালকে।

২০২০-২১ মৌসুমে রেকর্ড ১ হাজার ২৪৯ রান করা কামরান ছিলেন না গত ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে। পাকিস্তান শাহিনের (পাকিস্তানের ‘এ’ দল) হয়ে সিরিজ খেলতে এখন শ্রীলঙ্কায় আছেন তিনি, সেখানে চার দিনের ম্যাচে খেলেছেন অপরাজিত ৫৮ ও ৪৫ রানের ইনিংস।

পাকিস্তানের প্রধান নির্বাচক মোহাম্মদ ওয়াসিম বলেছেন, কন্ডিশন বিবেচনায় টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কথা বলেই ঠিক করা হয়েছে টেস্ট দল। হারিস ও দাহানির বাদ পড়া প্রসঙ্গে তাঁর ব্যাখ্যা, ‘যেহেতু চারজন সম্মুখসারির বোলার আছে, হারিস রউফ ও শাহনওয়াজ দাহানিকে তাই টি-টোয়েন্টির পর কায়েদে আজম ট্রফি খেলতে পাঠানো হয়েছে, যাতে তাঁরা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্টের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারেন।’

বাংলাদেশকে ‘নিজেদের মাটিতে শক্তিশালী দল’ বললেও তাদের হারানোর মতো ‘মেধা ও অভিজ্ঞতা’ পাকিস্তানের আছে বলে উল্লেখ করেছেন ওয়াসিম। এ সিরিজ থেকে পাওয়া ছন্দ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পরের সিরিজেও বয়ে নিয়ে যাওয়ার আশা করেছেন তিনি।

এ সফরের প্রথম টেস্ট ২৬ থেকে ৩০ নভেম্বর, চট্টগ্রামে। ৪ থেকে ৮ ডিসেম্বর মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্ট। এর আগে মিরপুরে হবে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ, যেটির দল আগেই ঘোষণা করেছে পাকিস্তান

বাংলাদেশ সফরে পাকিস্তানের টেস্ট দল

বাবর আজম (অধিনায়ক), মোহাম্মদ রিজওয়ান (সহ–অধিনায়ক), আব্দুল্লাহ শফিক, আবিদ আলী, আজহার আলী, বিলাল আসিফ, ফাহিম আশরাফ, ফাওয়াদ আলম, হাসান আলী, ইমাম-উল-হক, কামরান গুলাম, মোহাম্মদ আব্বাস, মোহাম্মদ নওয়াজ, নাসিম শাহ, নোমান আলী, সাজিদ খান, সরফরাজ আহমেদ, সৌদ শাকিল, শাহিন শাহ আফ্রিদি, জাহিদ মাহমুদ।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন