default-image

তিন সংস্করণ মিলিয়েই বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান এখন বিরাট কোহলি। তবু প্রসঙ্গ যখন সাদা বলের ক্রিকেট, সেই কোহলি যেন অন্য গ্রহের। ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে দলকে চাপমুক্ত করে কোহলির তুলনা কেউ নয়। যেকোনো কন্ডিশনেই কোহলি ভয়ংকর। সেই কোহলিকে এবার একটু ম্লান দেখাচ্ছে নিউজিল্যান্ডে। এমন ফর্মে আছেন যে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রায় ৫ বছর আগে কাটানো ভয়ংকর বাজে সময়ের স্মৃতি ফিরিয়ে এনেছেন।

নিউজিল্যান্ডকে টি-টোয়েন্টিতে উড়িয়ে দেওয়ার পর ওয়ানডে সিরিজও এগিয়ে থেকে শুরু করেছিল ভারত। কিন্তু প্রথম দুই ম্যাচ হেরে এর মধ্যেই সেটা হেরে বসেছে অতিথিরা। এর পেছনে কোহলির ভূমিকাই বেশি। সিরিজের আগেই চোট পেয়ে বিদায় নিয়েছেন রোহিত শর্মা। ফলে দলকে ভালো অবস্থানে নেওয়ার দায়িত্বটা কোহলির ওপরই ছিল। প্রথম ম্যাচে ৫১ রান করেছিলেন। তবু দল হেরেছিল। পরের ম্যাচে তাড়া করতে নেমে ১৫ রানে ফিরেছেন। আর সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে করেছেন আরও খারাপ। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে ৮ রানে মায়াঙ্ক আগারওয়াল ফেরার পর নেমেছিলেন। কিন্তু দলকে ভরসা দেবেন কী, উল্টো এক ছক্কা মেরে ৯ রান করে ফিরে গেছেন ১২তম বলে।

আজ ম্যাচের ফল যা–ই হোক, কোহলি সিরিজ শেষ করছেন ৭৫ রানে। অর্থাৎ তাঁর গড় এ সিরিজে ২৫। গত চার বছরে কোনো দ্বিপক্ষীয় সিরিজ বা কোনো টুর্নামেন্টে এতটা বাজে খেলেননি কোহলি। তাঁকে এর চেয়ে বাজে খেলতে দেখা গেছে বাংলাদেশের বিপক্ষে। ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সফরে এসে তিন ম্যাচে মাত্র ৪৯ রান করেছিলেন কোহলি। ১৬.৩৩ গড়ের সে সিরিজের পর মাত্র চারটি সিরিজে কোহলির গড় ৫০ পেরোয়নি। এর মাঝে দক্ষিণ আফ্রিকা (২০১৫) ও নিউজিল্যান্ডের (২০১৯) বিপক্ষে সিরিজ দুটিতেও কোহলির গড় ৪৯ ও ৪৯.৩৩ ছিল। শুধু ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে (৩৬) ও কিছুদিন আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই ব্যাট হাতে বাজে সময় পার করতে দেখা গেছে কোহলিকে। বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬১ গড়ে রান করা কোহলি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩ ম্যাচে ৮৯ রান করেছিলেন। এর মাঝে একটি ৮৫ রানের ইনিংসও ছিল।

উইন্ডিজের (২৯.৬৬) বিপক্ষে কাটানো খারাপ সময়ের স্বাদ কোহলি নিউজিল্যান্ডে এসেও পেলেন।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন