চট্টগ্রাম টেস্টে দ্বিতীয় দিনের পর আর মাঠে নামতে পারেননি সাকিব আল হাসান। খেলায় বিরতির এক ফাঁকে ক্যামেরায় এভাবে ধরা পড়লেন তিনি
চট্টগ্রাম টেস্টে দ্বিতীয় দিনের পর আর মাঠে নামতে পারেননি সাকিব আল হাসান। খেলায় বিরতির এক ফাঁকে ক্যামেরায় এভাবে ধরা পড়লেন তিনিছবি: প্রথম আলো

রাত পোহালেই মাঠে গড়াবে ঢাকা টেস্ট। বাংলাদেশের সিরিজ বাঁচানোর লড়াই। সাকিব আল হাসানের বিশ্বাস, ঢাকার মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট জিতে বাংলাদেশ দল সমতায় ফিরতে প্রস্তুত।

চোটের কারণে ঢাকা টেস্টে খেলা হচ্ছে না সাকিবের। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিশিয়াল পেজে ঢাকা টেস্ট সামনে রেখে বাংলাদেশ দলকে শুভকামনা জানিয়েছেন এ তারকা অলরাউন্ডার।

চট্টগ্রাম টেস্টে দ্বিতীয় দিন বল করতে গিয়ে কুঁচকিতে চোট পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। এরপর আর মাঠেই নামতে পারেননি তিনি। মাঠের বাইরে বসে দেখেছেন চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশ দলের হার।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে জয়ের জন্য ৩৯৫ রানের লক্ষ্য দিয়েও জিততে পারেনি মুমিনুল হকের দল।

কাইল মেয়ার্সের অবিস্মরণীয় ২১০ রানের ইনিংসে ভর করে ৩ উইকেটের দারুণ এক জয় তুলে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ঢাকা টেস্ট তাই বাংলাদেশের জন্য সিরিজ বাঁচানোর লড়াই।

মাঠের বাইরে থাকলেও সাকিব কিন্তু বাংলাদেশের জয় নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী। নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে আজ তিনি লিখেছেন, ‘প্রথম টেস্ট ম্যাচে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে হারের পর টাইগাররা দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজ সমতায় ফেরার লড়াইয়ে প্রস্তুত। বাংলাদেশ দলের জন্য শুভকামনা।’

চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে নিজেদের দুই ইনিংসে দুটি সেঞ্চুরির দেখা পায় বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে মেহেদী হাসান মিরাজের পর দ্বিতীয় ইনিংসে সেঞ্চুরি তুলে নেন অধিনায়ক মুমিনুল।

টেস্টের চতুর্থ দিন শেষেও জয় নিয়ে ভীষণ আত্মবিশ্বাসী ছিল বাংলাদেশ। চতুর্থ দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে ১১০ রানে ৩ উইকেট হারিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

কিন্তু এনক্রুমা বোনার (৮৬) ও কাইল মেয়ার্স মিলে ৪৪২ বলে ২১৬ রানের দুর্দান্ত এক জুটি গড়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন। পঞ্চম ও শেষ দিনের প্রথম দুই সেশনে তাঁরা কোনো উইকেট দেননি। পঞ্চম দিনে লড়াই করেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা জিততে পারেনি মুমিনুলের দল।

default-image

ঢাকা টেস্টের আগে দুটি দুঃসংবাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। সাকিবের পাশাপাশি ওপেনার সাদমান ইসলামও এ টেস্টে খেলতে পারছেন না। চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিন ফিল্ডিং করার সময় নিতম্বে চোট পান সাদমান।

মনে করা হচ্ছিল, সেই চোট থেকে সেরে উঠতে পারবেন তিনি। বিসিবির মেডিকেল দলের পূর্ণ তত্ত্বাবধানে আছেন তিনি। বিসিবি মেডিকেল দলের পরামর্শ অনুযায়ী চলবে তাঁর পুনর্বাসন প্রক্রিয়া। সাকিবের জায়গায় সৌম্য সরকারকে দলে ডেকেছেন নির্বাচকেরা।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন