বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাস আসার পর থেকেই প্রায় সব সময় জৈব সুরক্ষাবলয়ে থেকে খেলতে হচ্ছে ক্রিকেটারদের। এর মানসিক প্রভাবও স্পষ্ট হয়ে উঠছে ধীরে ধীরে। গেইলের আগে ক্রিকেট থেকেই অনির্দিষ্টকালের বিরতিতে গেছেন বেন স্টোকস। এ ছাড়া ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসেননি অস্ট্রেলিয়ার বেশ কয়েকজন শীর্ষ সারির ক্রিকেটার।

গেইলের ব্যাপারে এক বিবৃতিতে পাঞ্জাব জানিয়েছে, আইপিএলের বলয় থেকে বেরিয়ে দুবাইয়ে থাকবেন গেইল, ‘জৈব সুরক্ষাবলয়ে থাকার কারণে অবসাদে ভোগা ক্রিস গেইল আইপিএল ছেড়ে যাচ্ছেন। সিপিএলে জৈব সুরক্ষাবলয়ের পর আইপিএলেরও বলয়ে থাকা গেইল মানসিকভাবে নিজেকে চাঙা করতে দুবাই থাকবেন। এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে যোগ দেবেন।’

default-image

বিরতি নেওয়ার কথা ব্যাখ্যা করেছেন গেইল নিজেও, ‘কয়েক মাস ধরে আমি ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ, সিপিএলের পর আইপিএলের বলয়ে আছি। মানসিক দিক দিয়ে নিজেকে চাঙা করতে চাই আমি। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সহায়তা করার দিকে নজর দিতে চাই বলে দুবাইয়ে বিরতিতে যাচ্ছি। ছুটি দেওয়ার জন্য পাঞ্জাব কিংসকে ধন্যবাদ। দলের জন্য সব সময়ই শুভকামনা থাকবে আমার।’

এ বছর সব মিলিয়ে ৪টি দলের হয়ে ৩৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন গেইল। এ সময়ে তাঁর চেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন আর মাত্র ছয়জন। আইপিএলের পরের অংশে পাঞ্জাবের তিন ম্যাচের দুটিতে ছিলেন গেইল। পয়েন্ট টেবিলে এখন ছয়ে আছে ১১টি ম্যাচ খেলা পাঞ্জাব।

default-image

গেইলের সিদ্ধান্তকে সম্মানই জানিয়েছে পাঞ্জাব। প্রধান কোচ অনীল কুম্বলে বলেছেন, ‘আমি ক্রিসের (গেইলের) সঙ্গে খেলেছি, এরপর পাঞ্জাব কিংসে কোচিং করিয়েছি। আমার জানামতে সে চূড়ান্ত পেশাদার একজন। দল হিসেবে বিশ্বকাপের আগে নিজেকে প্রস্তুত করতে নেওয়া তার সিদ্ধান্তকে আমরা সম্মান করি।’

১৭ অক্টোবর শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেখানে এখনকার চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ম্যাচ ২৩ অক্টোবর, গতবারের রানার্সআপ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন