আরেকটি উইকেট, অস্ট্রেলিয়ার আরেকবার উদ্‌যাপন
সম্প্রচার শেষ ০৪ নভেম্বর ২০২১, ১৯: ৩৯

বাংলাদেশের ৭৩ রান ৬.২ ওভারেই পেরোল অস্ট্রেলিয়া

১৫: ২৫, নভেম্বর ০৪

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া, সুপার টুয়েলভ, দুবাই

২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। নিজেদের প্রথম ম্যাচেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর থেকে আর কোনো আইসিসির পূর্ণ সদস্য দলকেই এ টুর্নামেন্টে হারাতে পারেনি তারা। এবার প্রথম পর্ব পেরিয়ে সুপার টুয়েলভে এলেও প্রথম চার ম্যাচে জয়শূন্যই থাকতে হয়েছে তাদের।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুবাইয়ে আজ নিজেদের শেষ ম্যাচে নামছে মাহমুদউল্লাহর দল। বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়াকে সিরিজ হারিয়েছিল বাংলাদেশ, যদিও সে দলটা ছিল ভিন্ন। শীর্ষসারির একাধিক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ছিলেন না সেবার।

বিশ্বকাপের শেষে এসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ থেকে কোনো মধুর স্মৃতি সঙ্গী হবে বাংলাদেশের? নাকি থাকবে সেই পুরোনো চিত্রটাই?

প্রথম আলোর সরাসরি আপডেটে আপনাকে স্বাগত!

১৫: ২৭, নভেম্বর ০৪

ভোট দিন

সুপার টুয়েলভে অস্ট্রেলিয়া ৩ ম্যাচ খেলে ২ জয় পেয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় তুলে নেয় অ্যারন ফিঞ্চের দল। সেমিফাইনালে ওঠার আশা এখনো ভালোভাবেই টিকে আছে তাঁদের। সে পথে আরেকটু এগিয়ে যেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে আজ জিততেই হবে অস্ট্রেলিয়াকে। এমন ম্যাচে বাংলাদেশ কি হারাতে পারবে ফিঞ্চের দলকে?

ভোটে আপনার মতামত দিন এখানে।

১৫: ৩১, নভেম্বর ০৪

বলছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা

সব সময় নির্দিষ্ট কিছু খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্স দিয়ে আপনি জিতবেন, এটা আশা করা ঠিক নয়। যাদের আমরা তরুণ খেলোয়াড় বলি, জাতীয় দলে তারাও প্রায় ৫–৬ বছর করে খেলে ফেলেছে। এত বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে ফেলার পর আপনি আর কত দিন বলবেন তারা সিনিয়র খেলোয়াড় নয়? ৫–৬ বছর এই পর্যায়ে খেলে ফেলার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সবকিছু তাদের মুখস্থ থাকার কথা।
মাশরাফি বিন মুর্তজা
১৫: ৩৬, নভেম্বর ০৪

টস

হেডস কল করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ, পড়েছে টেলস। অ্যারন ফিঞ্চের কাছে টস হেরেছেন মাহমুদউল্লাহ। ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ফিঞ্চ।

টসের সময় সাইমন ডুলকে মাহমুদউল্লাহ বলেছেন, ‘ব্যাটিংয়ের জন্য ভালো উইকেট, তবে শুরুটা কেমন হবে সেটাই দেখার বিষয়। সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারিনি দল হিসেবে এ টুর্নামেন্টে। নিজেদের প্রমাণ করার ব্যাপার আছে।’

১৫: ৪১, নভেম্বর ০৪

একাদশ

বাংলাদেশ একাদশে আছে একটি পরিবর্তন। বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদের জায়গায় একাদশে ফিরেছেন বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। একটি পরিবর্তন আছে অস্ট্রেলিয়া একাদশেও। অ্যাশটন অ্যাগারের জায়গায় ফেরানো হয়েছে মিচেল মার্শকে। ফলে সাত ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলছে অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশ

লিটন দাস, মোহাম্মদ নাঈম, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, শামীম হোসেন, মেহেদী হাসান, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান

অস্ট্রেলিয়া

অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মার্কাস স্টয়নিস, ম্যাথু ওয়েড, মিচেল মার্শ, অ্যাডাম জাম্পা, জশ হ্যাজলউড, মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স

১৫: ৪৮, নভেম্বর ০৪

বাংলাদেশের কী ভুল হলো?

আইসিসির অফিশিয়াল সম্প্রচারে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল তিন ধারাভাষ্যকার নাসের হুসেইন, মাইকেল আথারটন ও সাইমন ডুলের কাছে।

তারা যেসব পয়েন্ট তুলে ধরলেন-

টপ অর্ডারের তামিমের অনুপস্থিতি ভুগিয়েছে বাংলাদেশকে। দেখে মনে হয়েছে কোনো ‘প্ল্যান বি’ নেই। বাউন্ডারি গুরুত্বপূর্ণ টি-টোয়েন্টিতে, তবে বাংলাদেশের তেমন পাওয়ার হিটার নেই। বাউন্ডারিও আসেনি নিয়মিত।

তবে তিনজনই যেটা বলেছেন আলাদা করে, মূলত একটা প্রশ্নই রেখেছেন- বাংলাদেশ কি শুধু ঘরের মাঠেই ভালো করতে চায়, নাকি এমন টুর্নামেন্টেও ভালো করতে চায়? কারণ দেশে যেসব উইকেটে খেলে বাংলাদেশ, সেগুলো হয় স্পিন-সহায়ক, তাতে ম্যাচ আর সিরিজ জিতলেও ভিন্ন কন্ডিশনে গিয়ে ভুগতে হয় নিয়মিতই।

default-image
১৬: ০২, নভেম্বর ০৪

রান-উৎসবের উইকেট

গতকাল এ উইকেটই দেখেছে রান-উৎসব। নিউজিল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডের ম্যাচে উঠেছিল ৩২৮ রান, ২২টি চারের সঙ্গে এসেছিল ১৪টি ছয়।

১৬: ০৬, নভেম্বর ০৪

প্রথম ওভার, ফিরলেন লিটন

লেট-সুইং। ফুললেংথ। ব্যাট এগিয়েও মিচেল স্টার্কের গোলা থামাতে পারেননি লিটন দাস। মোহাম্মদ নাঈমকে দুইটি ফুললেংথের বলেই শুরু করেছিলেন স্টার্ক। নাঈম নিজেকে রক্ষা করতে পারলেও লিটন পারলেন না। তৃতীয় বলেই প্রথম উইকেট হারাল বাংলাদেশ।

সৌম্য সরকারকেও একই ‘ট্রিটমেন্ট’ দিয়েছেন স্টার্ক, অবশ্য একটু লেগসাইডের দিকে ছিল সেটা। পরের বলটা ছিল লেংথে, সৌম্য নিয়েছেন সিঙ্গেল। শেষ বলে নাঈম দিয়েছেন ডট।

বাংলাদেশ ২/১, ১ ওভার।

১৬: ১৩, নভেম্বর ০৪

সৌম্য ব হ্যাজলউড, ২ ওভারে ২ উইকেট নেই বাংলাদেশের

গুডলেংথ। ওভার দ্য উইকেট থেকে করা জশ হ্যাজলউডের বলে ছিল একটু বাড়তি বাউন্স, ছিল গতি। সৌম্য সরকার ব্যাট তুলতে দেরি করেছেন, নিচের দিকে অংশে লেগে ভেঙেছে স্টাম্প। দুই ওভারে দুই উইকেট হারাল বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ ৬/২, ২ ওভার।

১৬: ১৮, নভেম্বর ০৪

৩ ওভার, ৩ উইকেট

পেস বা স্পিন- কিছু যায় আসে না। ফুলটাইম বোলার বা পার্টটাইম- তাতেও কিছু যায় আসে না। বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা আউট হওয়ার উপায় বের করছেন ঠিকই।

তৃতীয় ওভারে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে এনেছেন অ্যারন ফিঞ্চ। পেছনের দিকে গিয়ে ডিফেন্ড করতে গিয়ে মিস করে গেছেন মুশফিকুর রহিম। আম্পায়ার নিতিন মেননের এলবিডব্লুর সিদ্ধান্ত রিভিউ করার প্রয়োজন বোধ করেননি মুশফিক।

১৬: ২২, নভেম্বর ০৪

নাঈমের দুই চার

প্রথমটা যেভাবে খেলতে চেয়েছিলেন, ঠিক সেভাবে পারেননি নাঈম। তবে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে উড়তে থাকা ফিল্ডারকে ফাঁকি দিয়ে পেয়েছেন বাউন্ডারি। কামিন্সের বলে পরের বাউন্ডারিতে অবশ্য টাইমিং দারুণ হয়েছে বাংলাদেশ ওপেনারের।

বাংলাদেশ ১৯/৩, ৪ ওভার।

১৬: ২৯, নভেম্বর ০৪

৩ বল, ৩ চার

অফস্টাম্পের ওপরের বলে এক পা তুলে পুল করেছেন মাহমুদউল্লাহ, পেয়েছেন বাউন্ডারি। পরের চারটি এসেছে আউটসাইড-এজে, থার্ডম্যান দিয়ে। অবশ্য পরের চারে সফট-হ্যান্ডে খেলার কৃতিত্ব পাবেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

পরের ওভারে হ্যাজলউডের প্রথম বলে স্ট্রেইট ড্রাইভে চার মেরেছেন নাঈম।

১৬: ৩১, নভেম্বর ০৪

ওয়ান মিনিট আপ, নেক্সট মিনিট ডাউন

দারুণ স্ট্রেইট ড্রাইভে চার মারার এক বল পর পুল করতে গিয়ে ক্যাচ তুললেন নাঈম শেখ। হ্যাজলউডের বলে বলতে গেলে উইকেটটা ছুঁড়েই এসেছেন তিনি।

মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে তাঁর জুটি আশা জোগালেও থেমেছে আগেভাগেই। ১৬ বলে উঠেছে ২২ রান। ৩২ রানে বাংলাদেশ হারিয়েছে চতুর্থ উইকেট, পাওয়ারপ্লে শেষ হয়নি এখনো।

১৬: ৩৪, নভেম্বর ০৪

৩৩ রান, ৪ উইকেট

৬ ওভার, ৩৩ রান। লিটন, সৌম্য, মুশফিকের পর নাঈমকে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

এ টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত ১৮টি উইকেট বাংলাদেশ হারিয়েছে প্রথম ৬ ওভারের মধ্যেই, যে কোনো দলের মধ্যে যা সর্বোচ্চ।

১৬: ৩৭, নভেম্বর ০৪

উইকেট নম্বর পাঁচ!

বাংলাদেশ সময় নিচ্ছে না, দিচ্ছেও না। উইকেট হারাচ্ছে ওভারের সংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে!

আক্রমণে এসেছেন অ্যাডাম জাম্পা, উইকেট পেয়েছেন প্রথম বলেই। তাঁর রং-আনে খোঁচা মেরে ফিরেছেন আফিফ হোসেন। স্লিপে ক্যাচটা নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

৩৩ রানেই পঞ্চম উইকেটটিও হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ।

১৬: ৪৭, নভেম্বর ০৪

প্রথম ছয়!

জাম্পার বলটা স্লটে পেয়েছিলেন, স্লগ সুইপে ইনিংসের প্রথম ছয়টা মেরেছেন শামীম হোসেন। সে ছয়ে ফিফটি পূর্ণ হয়েছে বাংলাদেশের। সাত নম্বরে নামা শামীম শুরুটা করেছেন ইতিবাচকই।

বাংলাদেশ ৫৪/৫, ৯ ওভার।

১৬: ৫২, নভেম্বর ০৪

১০ ওভার শেষে

২৩ বল ধরে কোনো উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ইনিংসে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ এটাই!

বাংলাদেশ ৫৮/৫, ১০ ওভার।

১৭: ০২, নভেম্বর ০৪

তর সইছে না বাংলাদেশের

যেন দেশে ফিরতে অস্থির হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা।

এবার অ্যাডাম জাম্পার পরপর দুই বলে ফিরলেন শামীম হোসেন ও মেহেদী হাসান। প্রথমে কাট করতে গিয়ে কট-বিহাইন্ড হয়েছেন শামীম। প্রথম বলে জায়গা বানিয়ে খেলতে গিয়ে জাম্পার টার্নে পরাস্ত মেহেদী হয়েছেন এলবিডব্লু। রিভিউ নিয়েও বাঁচেননি তিনি।

পরের ওভারের প্রথম বলে হ্যাটট্রিকের সামনে থাকবেন জাম্পা।

বাংলাদেশ হারিয়েছে সপ্তম উইকেট। বাকি আছে এখনো ৯ ওভার। অবশ্য অন্যপ্রান্তে টিকে আছেন মাহমুদউল্লাহ, তবে কতক্ষণ টিকবেন প্রশ্ন সেটাই।

১৭: ০৫, নভেম্বর ০৪

অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়া! 

default-image
১৭: ১১, নভেম্বর ০৪

রইল বাকি দুই!

লেগস্টাম্পের বাইরের বল। মাহমুদউল্লাহ গেলেন ফ্লিক করতে। উইকেটের পেছনে ম্যাথু ওয়েড বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে নিয়েছেন ক্যাচ। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তেরও অপেক্ষা করেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক। ৬৫ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ। এখন নিজেদের ইতিহাসের সর্বনিম্ন রানে অলআউট হয়ে যাওয়ার শঙ্কা তাদের সামনে।

default-image
১৭: ১৪, নভেম্বর ০৪

ব্যাটিংয়ে যখন 'ক্যানসার'

টি–টোয়েন্টিতে অন্য দলগুলোর ভাবনা পুরোপুরি উল্টো। বড় দলগুলোর কথা না হয় বাদই দেওয়া গেল। আফগানিস্তান, আয়ারল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, এমনকি নামিবিয়ার মতো দলও অনেক ইতিবাচক। এই দলগুলোর কেউই হারার আগে হেরে বসে না। অথচ বাংলাদেশ দলকে দেখলে মনে হয় কেমন যেন দ্বিধান্বিত একটা দল। টি–টোয়েন্টিতে ব্যাটিং কেমন করতে হবে, এ নিয়ে বিভ্রান্তিতে গোটা দল।

পড়ুন মোহাম্মদ জুবাইরের লেখা-

১৭: ১৭, নভেম্বর ০৪

হ্যাটট্রিক মিস জাম্পার, এরপর ফিরলেন মোস্তাফিজ

হ্যাটট্রিক বল। আউটসাইড-এজ। মিস!

ম্যাথু ওয়েডের হাতে বাঁচলেন তাসকিন আহমেদ, হ্যাটট্রিক মিস করলেন অ্যাডাম জাম্পা! আগের ওভারে শেষ দুই বলে দুই উইকেট নিয়েছিলেন জাম্পা, দাঁড়িয়েছিলেন হ্যাটট্রিকের সামনে।

অবশ্য ৩ বল পরই উইকেট পেয়েছেন জাম্পা। টেনে মারতে গিয়ে লং-অনে ধরা পড়েছেন মোস্তাফিজ। নিজেদের সর্বনিম্ন ৭০ রানের স্কোর পেরিয়েছে বাংলাদেশ, তবে অলআউট হওয়ার দ্বারপ্রান্তে তারা।

১৭: ২০, নভেম্বর ০৪

জাম্পার ৫, বাংলাদেশ শেষ ৭৩ রানেই

শরীফুল বড় শট খেলতে গিয়ে ধরা পড়েছেন স্লিপে ফিঞ্চের হাতে। জাম্পা পেয়েছেন ৫ উইকেট, ১৯ রানে। ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং তাঁর এটি।

বাংলাদেশ থামল ৭৩ রানে। দুবাইয়ে আরেকটা বীভৎস ব্যাটিং প্রদর্শনী বাংলাদেশের। ৫ ওভার বাকি থাকতেই গুটিয়ে গেছে মাহমুদউল্লাহর দল। অস্ট্রেলিয়াকে নেট রান-রেট বাড়িয়ে নেওয়ার বড় একটা সুযোগই দিল তারা।

১৭: ৩৪, নভেম্বর ০৪

উলটে গেল পাশার দান

default-image
default-image
১৭: ৪৯, নভেম্বর ০৪

২ ওভার, ১৬ রান

ব্যাক অ্যান্ড অ্যাক্‌রোস- মোস্তাফিজকে ছয় মেরেছেন অ্যারন ফিঞ্চ। ২ ওভারে অস্ট্রেলিয়া তুলেছে ১৬ রান। এত রান তোলার আগেই বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলেছিল ৩ উইকেট।

১৭: ৫৬, নভেম্বর ০৪

সুযোগ হাতছাড়া

তাসকিন ক্ষোভ প্রকাশ করলেন প্রকাশ্যেই। করাটাও স্বাভাবিক।

মিডউইকেটে সৌম্য সরকার গড়বড় করে ফেলেছেন বলের ট্র্যাজেকটরি বুঝতে। পেছনে জায়গা ছিল, তবে ঝাঁপটা ঠিকঠাক দিতে পারেননি তিনি। তাসকিন উইকেট পাননি, অ্যারন ফিঞ্চ পেয়েছেন চার।

পরের ওভারে প্রায় একই শট খেলেছেন ফিঞ্চ, এবার টাইমিং হয়েছেন দারুণ। সৌম্য বা কারও সুযোগ ছিল না। গ্যালারিতে দর্শকের সুযোগ থাকলেও ধরতে পারেননি তিনি/তারা।

১৮: ০৪, নভেম্বর ০৪

অস্ট্রেলিয়ার নজর রান-রেটে

পঞ্চম ওভারের শেষ বলে বোল্ড হয়েছেন অ্যারন ফিঞ্চ। তাসকিন আহমেদকে জায়গা বানিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন তিনি। তবে এর আগে অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক করেছেন ২০ বলে ৪০ রান। ৫ ওভারে ৫৮ রান তুলেছে অস্ট্রেলিয়া।

পয়েন্ট টেবিল দেখুন

default-image
১৮: ১০, নভেম্বর ০৪

২ ওভার, ২ বোল্ড

পাওয়ারপ্লে-র শেষ বলে শরীফুলকে বড় শট খেলতে গিয়ে বোল্ড হয়েছেন ডেভিড ওয়ার্নার। তবে জয় থেকে এখন ৭ রান দূরে অস্ট্রেলিয়া।

১৮: ২০, নভেম্বর ০৪

অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড জয়

তাসকিনকে পুল করে মিডউইকেট দিয়ে ছয় মেরেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

৬.২ ওভারেই ৭৪ রানের লক্ষ্যে পৌঁছে গেল অস্ট্রেলিয়া। নেট রান-রেটের বেশ বড়সড় উন্নতি হয়েছে তাদের। গ্রুপ '১'-এ ইংল্যান্ডের পরই এখন অস্ট্রেলিয়ার অবস্থান

টি-টোয়েন্টিতে ৭৪ বা এর বেশি রানের লক্ষ্যে সবচেয়ে কম ওভার খেলে জয়ের রেকর্ডে এটি চার নম্বরে। তবে আইসিসির পূর্ণ সদস্য দেশগুলোর ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার জয় দুই নম্বরে।

২০০৯ বিশ্বকাপে স্কটল্যানের ৯০ রানের লক্ষ্য ৬ ওভারেই পেরিয়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড।

১৮: ২৯, নভেম্বর ০৪

সুপার টুয়েলভে সবচেয়ে বাজে দল?