default-image

নিউজিল্যান্ড সফরে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দুই সিরিজেই ধবলধোলাই হয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে যা একটু ইতিবাচক খুঁজে পেয়েছে বাংলাদেশ, সেটা তরুণদের পারফরম্যান্স।

বিসিবিপ্রধান নাজমুল হাসান তরুণদের এই পারফরম্যান্সেই খুশি। নিউজিল্যান্ডের পর শ্রীলঙ্কা সফরেও আরেক তরুণ নাজমুল হোসেনের সেঞ্চুরি মুগ্ধ করেছে বিসিবিপ্রধানকে। এই তরুণদের পারফরম্যান্সেই এখন আশা দেখছেন নাজমুল হাসান।

বিজ্ঞাপন
default-image

আজ কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ দিতে গিয়ে বোর্ডপ্রধান সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডে সিরিজ হারার পরও নাঈম শেখ, আফিফ, শেখ মেহেদী, শরিফুল, তাসকিনের খেলা ভালো লেগেছে। যাদের নাম বলছি, এদের মধ্যে একমাত্র তাসকিন ছাড়া সবাই নতুন। শ্রীলঙ্কা টেস্ট দেখুন, সবচেয়ে ভালো পারফরম্যান্স নাজমুলের। এখন নতুন ছেলেরা সুযোগ পাচ্ছে। যারা নিউজিল্যান্ড খেলতে গিয়েছে, তারা কিন্তু কখনো ওই রকম কন্ডিশনে খেলেইনি। জাতীয় দলে তো সুযোগই পায়নি। তাদের যে খেলা তাতে আমার মনে হয় ভবিষ্যৎটা ভালো।’

বোর্ডের পরিকল্পনা এখন এই তরুণ ক্রিকেটারদের ঘিরে। তরুণদের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশকে ধারাবাহিক দলে পরিণত করার স্বপ্ন দেখেন নাজমুল হাসান। স্বপ্ন দেখেন বিশ্বের সেরা পাঁচ দলের একটি হওয়ার, ‘এখন এমন কোনো দল নেই যাদের আমরা হারাতে পারি না। তাই বলে আমরা কিন্তু সেরা দল না। কেউ যদি মনে করে আমরা সেরা দল, না, প্রশ্নই উঠে না। কিন্তু আমাদের সে সম্ভাবনা আছে, সেই সম্ভাবনাকে ধারাবাহিক করাটাই বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের পাইপলাইনে যে ক্রিকেটার আছে, নতুন খেলোয়াড় আছে, ওদের খেলা দেখি আমি সত্যিই আশাবাদী। ওই দিন আর বেশি দূরে না যেদিন আমরা প্রথম পাঁচটা দলের মধ্যে থাকব।’

default-image

তবে বোর্ডের পরিকল্পনায় বড় বাধা এখন করোনাভাইরাস। নাজমুল হাসান বলেছেন, করোনার কারণে গত এক বছর নিয়মিত খেলা না হওয়ায় বিসিবির পরিকল্পনায় বড় ধাক্কা লেগেছে। সেই ধাক্কা থেকে এখনো বের হতে পারছে না ক্রিকেট বোর্ড।

কদিন আগে শুরু হওয়া জাতীয় লিগের দুই রাউন্ডের খেলা হয়েই স্থগিত করতে হয়েছে। গত বছর স্থগিত হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের নতুন করে শুরু হওয়ার কথা আগামী ৬ মে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় প্রিমিয়ার লিগও আছে শঙ্কায়। আজ বোর্ডপ্রধানকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেছেন, ‘এখন যে পরিস্থিতি আছে তাতে প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়ানো খুবই কঠিন। কারণ যে পরিস্থিতি তাতে মাঠে খেলা ফেরানো কোনোভাবেই উচিত হবে না। যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা জৈব সুরক্ষাবলয় নিশ্চিত করতে না পারছি, ততক্ষণ পর্যন্ত খেলাটা মাঠে গড়ানো একটু কঠিন। সেখানে একটা দল হোক বা দশটা। যদিও বিসিবি চেষ্টা করে যাচ্ছে। ওরা যদি আমাকে সন্তুষ্ট করতে পারে যে জৈব সুরক্ষাবলয়ে খেলাটা চালাতে পারবে, তাহলে আমরা খেলব। আমার কাছে মনে হচ্ছে সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন