ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলেন জনি বেয়ারস্টো
ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলেন জনি বেয়ারস্টো ছবি: এএফপি

হুট করে ভিডিওটা দেখলে মনে হতে পারে, টটেনহাম খেলোয়াড়দের বুঝি ভূতে ধরেছে! ফুটবল ছেড়ে ব্যাট–বল হাতে কেন?

মজার এই খেলায় গোলরক্ষক জো হার্ট দারুণ বোলিং করেছেন, স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন করেছেন ভালো ব্যাটিং। তাতে টটেনহাম স্ট্রাইকারের সম্ভবত মনে হয়েছে, জনি বেয়ারস্টো তাঁর কাছ থেকে ব্যাটিং শিখতে পারেন!

বিজ্ঞাপন

নাহ, এ স্রেফ রসিকতা। বেয়ারস্টোরের সঙ্গে কেইন যেমন রসিকতা করেছেন তেমন আর কি। কেপ টাউনে কাল সিরিজের প্রথম টি–টোয়েন্টিতে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৫ উইকেটে হারায় ইংল্যান্ড।

৪৮ বলে ৮৬ রানের অপরাজিত ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলেন বেয়ারস্টো। এরপর তাঁকে অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেন ইংল্যান্ড ফুটবল দলের অধিনায়ক কেইন, ‘মনে হচ্ছে, জনি বেয়ারস্টো নিজের ইনিংসটি খেলার আগে আমার ব্যাটিং মাস্টারক্লাস দেখেছে। ভালো খেলেছে ইংল্যান্ড দল।’

default-image

দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া ১৭৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জিততে হলে ভালো খেলার বিকল্প নেই। ইংল্যান্ড সেই কাজটিই করেছে এবং তাতে বেয়ারস্টোরের অবদান সবচেয়ে বেশি।

৩৪ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর মনে হয়েছিল বিপদ ভর করতে পারে ইংল্যান্ডের ইনিংসে। কিন্তু চতুর্থ উইকেটে বেয়ারস্টো–স্টোকসের ৫২ বলে ৮৫ রানের জুটি কাজটা সহজ করে দেয়। ২৭ বলে ৩৭ রান করে আউট হন স্টোকস। বেয়ারস্টো অন্য প্রান্তে আগলে ছিলেন শেষ পর্যন্ত।

জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে ১৮ রান দরকার ছিল ইংল্যান্ডের। স্যাম কারেনের ছক্কায় ১৯তম ওভারে আসে মোট ১১ রান।

বিজ্ঞাপন
default-image

অর্থাৎ জিততে শেষ ওভারে দরকার ৭ রান। লুঙ্গি এনগিডির প্রথম দুই বল থেকে চার–ছক্কায় ১০ রান তুলে ম্যাচটা ওখানেই শেষ করেন বেয়ারস্টো।

ম্যাচসেরা বেয়ারস্টো ৪ ছক্কা ও ৯ চারে ইনিংসটি সাজান। প্রোটিয়াদের হয়ে ২টি করে উইকেট এনগিডি ও লিন্ডের।

তার আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়েছিল স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথম ওভারেই ওপেনার টেম্বা বাভুমাকে হারায় স্বাগতিক দল। ফাফ ডু প্লেসির ৪০ বলে ৫৮ রানের ইনিংসে বিপদ এড়ায় তারা।

ফন ডার ডুসেনের ৩৭ ও হেনরিখ ক্লাসেনের ২০ রানে ভর করে লড়াকু সংগ্রহ পায় প্রোটিয়ারা। ইংল্যান্ডের হয়ে ৩ উইকেট স্যাম কারেনের।

মন্তব্য করুন