বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

এবারের অ্যাশেজে কোনো কিছুই ঠিকমতো হচ্ছে না ইংল্যান্ডের। বোলাররা উইকেট পাচ্ছেন না, ভাগ্য সঙ্গে থাকছে না, ক্যাচ হাত ফসকাচ্ছে নিয়মিত। আজকের আগে প্রথম তিন টেস্টে ইংল্যান্ডের কোনো বোলারই ইনিংসে পাঁচ উইকেট পাননি। কোনো ব্যাটসম্যান দেখা পাননি শতকের। তবে বোলারদের তুলনায় ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাই বেশি চোখে পড়েছে। সিরিজের তৃতীয় টেস্টে অস্ট্রেলিয়া মাত্র ২৬৭ রান করেও ইনিংস ব্যবধানে ম্যাচ জিতেছিল।

সিরিজে তিন টেস্টে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড ১৪৭, ২৩৬ ও ১৮৫ রান করেছে। চতুর্থ টেস্টের দ্বিতীয় দিনে অস্ট্রেলিয়া ৪১৬ রানে ইনিংস ঘোষণা করার পর ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে বিনা উইকেটে ১৩ রানে দিন শেষ করেছে। আগামীকালও ব্যাটসম্যানরা নিজেদের উইকেটের মূল্য বুঝবেন এমনটাই আশা ব্রডের, ‘এই সফরের অনেক কিছু নিয়েই কথা বলা যায়, কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ইনিংসের রানই আপনাকে টিকিয়ে রাখে। আমরা সেটা করতে ব্যর্থ হয়েছি।’

default-image

এই সিরিজে ব্যাটসম্যানরাই যে ডোবাচ্ছেন বারবার, সেটা মনে করিয়ে দিয়েছেন ব্রড, ‘কোন বোলার খেলাচ্ছেন, সেটা গুরুত্বপূর্ণ না, যদি আপনি ১৪০ রানে অলআউট হয়ে যান। একটু নিষ্ঠুর শোনাতে পারে কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে এটাই সত্য।’

সিরিজে এর আগে মাত্র এক টেস্ট খেলেছেন ব্রড। অ্যাডিলেডের সে ম্যাচে ইংল্যান্ড ২৭৫ রানে হেরেছে। সে ম্যাচের পর রুট প্রকাশ্যে বোলারদের সমালোচনা করেছেন। কিন্তু যে সিরিজে ইংল্যান্ড এখনো ৩০০ পেরোয়নি ছয় ইনিংসে, সে সিরিজে শুধু বোলারদের দায় দেওয়াটা সাবেক অনেক ক্রিকেটারই মেনে নেননি। অ্যাশেজে এখন পর্যন্ত মাত্র চার ব্যাটসম্যান সব মিলিয়ে ১০০ রান পেরিয়েছেন। এদের মধ্যে ক্রিস ওকসকে মূল ব্যাটিং ভরসা হিসেবে মানতে চাইবেন না কেউই। ৬ ইনিংসে ১০১ রান করা বেন স্টোকসের গড়ও ১৬–এর একটু বেশি।

আগামীকাল পরিস্থিতির পরিবর্তন দেখার আশা ব্রডের, ‘আগামীকাল আমরা একটা সুযোগ পাচ্ছি। আশা করি, আগামীকাল কেউ বড় একটা শতক করে এখানে (সংবাদ সম্মেলনে) বসবে এবং কিছু ইতিবাচক প্রশ্নের উত্তর দেবে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন