ইমরান খান-জাভেদ মিয়াঁদাদরা পারেননি। আফসোস থেকে গেছে ওয়াসিম আকরাম, ইনজামাম-উল-হক, শোয়েব আখতারদেরও। ১৯৯২ বিশ্বকাপে সিডনির সেই ম্যাচ থেকে শুরু করে গত বিশ্বকাপে মোহালির সেমিফাইনাল। বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে জয় স্বপ্নই রয়ে গেছে পাকিস্তানের কাছে। এবার কি গেরোটা খুলতে পারবে মিসবাহ-উল-হকের দল?
সুনীল গাভাস্কার যেমনটা বলছেন, তাতে হতাশাই বাড়বে পাকিস্তানিদের। এবারও পাকিস্তানকে ধোনির দল হারিয়ে দেবে বলেই মনে করেন ভারতীয় কিংবদন্তি, ‘দুই দলই বেশ নড়বড়ে অবস্থায় বিশ্বকাপ শুরু করছে। ভারতের ফর্ম ভালো নয়, সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের কাছে সিরিজ হেরেছে পাকিস্তানও। তবে আমি মনে করি, এ ম্যাচে ভারত এগিয়ে থাকবে অতীত রেকর্ডের কারণে।’
গাভাস্কার ভারতীয়, তিনি নিজের দেশের পক্ষ নিতেই পারেন। তবে পাকিস্তানের সম্ভাবনা দেখছেন না সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেলও। কেন? শুনুন বড় চ্যাপেলের মুখেই, ‘যদিও পাকিস্তান একবার বিশ্বকাপ জিতেছে। কিন্তু ওই দলটাতে ইমরান, মিয়াঁদাদ, আকরাম, ইনজামামের মতো ম্যাচ উইনার ছিল। এই দলে সে রকম কেউই নেই।’
ফর্ম বিবেচনায় গাভাস্কার দুই দলকেই পাশাপাশি রেখেছেন। তবে চ্যাপেল একটু এগিয়ে রাখছেন ভারতকেই, ‘ধোনির দল গত দুই মাস ধরে অস্ট্রেলিয়ায় খেলছে। ওরা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজটা জিততে না পারলেও লড়াই করেছে। এ ছাড়া এখানকার কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছে ভারতীয় দল। সবকিছু বিবেচনায় তাই ভারতই এই ম্যাচে এগিয়ে।’
বিশ্বকাপের ঠিক আগে জুনায়েদ খানকে হারানোও পাকিস্তানের জন্য বড় ক্ষতি বলে মনে করেন চ্যাপেল। গাভাস্কার অবশ্য জুনায়েদের চেয়ে সাঈদ আজমলের না থাকাটাকে পাকিস্তানের জন্য আরও বড় ক্ষতি বলে মনে করেন, ‘কোনো সন্দেহ নেই, আজমল পাকিস্তান দলের অর্ধেক ছিল। সেরা ফর্মের মুরালিধরন শ্রীলঙ্কার জন্য যতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন, পাকিস্তানের জন্য আজমলও তা-ই।’
কাল গাভাস্কার-চ্যাপেলকে ভুল প্রমাণ করে কি নতুন ইতিহাস গড়তে পারবে পাকিস্তান? পিটিআই।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন