ইংলিশ ওপেনার ররি বার্নস ঝামেলায় জড়িয়েছেন ইংল্যান্ড নারী দলের বাঁহাতি স্পিনার অ্যালেক্স হার্টলির টুইটের জবাব দিয়ে।
ইংলিশ ওপেনার ররি বার্নস ঝামেলায় জড়িয়েছেন ইংল্যান্ড নারী দলের বাঁহাতি স্পিনার অ্যালেক্স হার্টলির টুইটের জবাব দিয়ে।টুইটার

হারলে তো এমনিতেই সবার মন খারাপ থাকে। তার ওপর সেই হার যদি হয় টেস্ট ক্রিকেটে এবং মাত্র দুই দিনে! আহমেদাবাদ টেস্টে হারের পর ইংল্যান্ড দলের খেলোয়াড়দের মন-মেজাজ কেমন ছিল, সেটা অনুমান করা কঠিন কিছু না। এর মধ্যে যদি আবার কেউ সেই হার নিয়ে খোঁচা দেয় বা রসিকতা করে, তাহলে সেটা সহ্য করা কঠিন বৈকি।

default-image


সেই খোঁচাটাও আবার দিয়েছেন ইংল্যান্ডেরই মেয়েদের ক্রিকেট দলের বাঁহাতি স্পিনার অ্যালেক্স হার্টলি। সেটার জবাব দিয়ে ভারত সফরে ইংল্যান্ড দলে থাকা ওপেনার ররি বার্নস পড়েছেন আবার বিপদে। ইংল্যান্ড টিম ম্যানেজমেন্ট উল্টো বার্নসকেই ভর্ৎসনা করেছে রাত জেগে হার্টলির সঙ্গে টুইটে খোঁচাখুঁচি করার জন্য!

default-image

ঘটনা শুনলে ক্রিকেটপ্রেমীরা মজা পেতে পারেন। আহমেদাবাদ টেস্টের দ্বিতীয় দিনেই ইংল্যান্ড ভারতের কাছে হেরে গেল, ওই একই দিন ডানেডিনে ইংল্যান্ড নারী দলের ওয়ানডে ম্যাচ ছিল নিউজিল্যান্ড নারী দলের বিপক্ষে। আহমেদাবাদ ও ডানেডিনের সময়ের ব্যবধানের কারণে টেস্টের দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগেই শুরু হয়ে যাওয়ার কথা ছিল ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড নারী দলের ওয়ানডে। কিন্তু ইংল্যান্ডের ছেলেদের দল আহমেদাবাদ টেস্টে হেরে গেছে দিন শেষেরও একটু আগে। ফলে একই সঙ্গে দুই ম্যাচের কোনটা দেখবেন, এ নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হয়নি দর্শককে।

বিজ্ঞাপন

তো ডানেডিনের সেই ওয়ানডেতে বিটি স্পোর্টসের বিশেষজ্ঞ ও ভাষ্যকার হিসেবে কাজ করছিলেন ইংল্যান্ডের মেয়েদের দলের হয়ে ৩২টি ম্যাচ খেলা অ্যালেক্স হার্টলি। ২০১৯ সালের পর আর জাতীয় দলে ডাক পাননি। আপাতত ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি এটাই তাঁর পেশা। জো রুটের দলকে দুই দিনে হেরে যেতে দেখে সেদিন অ্যালেক্স হার্টলি টুইট করলেন, ‘ভালো লাগছে যে ইংল্যান্ডের ছেলেরা রাতে নারী দলের ম্যাচটা শুরু হওয়ার আগেই টেস্ট শেষ করে দিয়েছে। বিটি স্পোর্টসেই দেখুন ওদের (মেয়েদের) খেলা।’ টুইটের সঙ্গে চারটি করতালির ইমোজি জুড়ে দিয়েছেন অ্যালেক্স হার্টলি।

ব্যাপারটা ভালো লাগেনি ইংলিশ ওপেনার ররি বার্নসের। এমনিতেই চেন্নাইয়ে প্রথম দুই টেস্টের পর আহমেদাবাদ টেস্টের দল থেকে বাদ পড়েছেন। একটা কারণ তাঁর নিজের ফর্ম, চেন্নাইয়ে দুই টেস্টে ৪ ইনিংসে রান করেছেন ৩৩, ০, ০ ও ২৫। আরেকটা কারণ, নিয়মিত ওপেনার জ্যাক ক্রলির ফিট হয়ে দলে ফেরা। নিজে বাদ পড়েছেন, দল এভাবে হেরেছে, তার ওপর নিজের দেশেরই এক নারী ক্রিকেটার এমন খোঁচা মেরেছেন—সব মিলিয়ে মেজাজটা আর ধরে রাখতে পারেননি বার্নস।

আহমেদাবাদের স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে দেখা গেল অ্যালেক্স হার্টলির টুইটের একটা জবাব দিয়েছেন বার্নস। সেখানে লেখা, ‘যেভাবে ইংল্যান্ডের ছেলেরা নারী ক্রিকেটকে সমর্থন করে এসেছে সব সময়, সেটার প্রতিদানে এমন মন্তব্য খুবই হতাশাজনক।’ বার্নসের সেই টুইটে লাইক দেন জেমস অ্যান্ডারসন, বেন স্টোকসসহ ইংল্যান্ড টেস্ট দলের আরও কয়েকজন। এর জবাবে আবার অ্যালেক্স হার্টলি লেখেন, ‘আমার মনে হয় আমার কথাটা ভুল বোঝা হচ্ছে বা ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। কাউকে আঘাত করার জন্য কিছু বলিনি। আমরা সবাই তো টেস্ট ম্যাচের ভক্ত।’

default-image

কিন্তু মিনিট ৪৫ পরে দেখা গেল, বার্নসের সেই টুইটটা আর নেই। কী ব্যাপার? ইসিবির এক মুখপাত্র পরে সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, বার্নসের সঙ্গে এই ব্যাপারটা নিয়ে টিম ম্যানেজমেন্ট কথা বলেছে এবং রাত জেগে টুইটে কথা চালাচালি করার জন্য বার্নসকে তিরস্কারও করা হয়েছে। এ নিয়ে ইংল্যান্ডের কোচ ক্রিস সিলভারউড বলেছেন, ‘কে কী বলেছে, কাজটা ভালো না খারাপ, সেটা বিচারের দায়িত্ব আমার না। আমার মনে হয় এসব ব্যাপার নিয়ে আমরা ইংল্যান্ডে ফেরার পর আলোচনা করতে পারি। আমি এসব নিয়ে আপাতত ভাবছি না। এখন এমনিতেই আমার অনেক কাজ বাকি।’

ইংল্যান্ড নারী দলের অলরাউন্ডার ন্যাট স্কাইভার অবশ্য এই খোঁচাখুঁচিতে দোষের কিছু দেখেন না। তবে তাঁর কথা, ‘আমি নিজে টুইটটা দেখিনি। অন্য মেয়েদের কাছ থেকে শুনেছি। অ্যালেক্স তার নিজের মতামত দিয়েছে। সেটা সে দিতেই পারে। তবে আমার মনে হয় সময়টা ঠিক ছিল না। আমি যদি দুই দিনে টেস্ট হারতাম, তারপর আমাকে কেউ এমন কথা বলত, আমিও খেপে যেতাম। সময়টা ঠিক ছিল না আসলে, তবে টুইটারের ব্যাপার-স্যাপার তো এমনই।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন