বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা একদিক থেকে কোহলি আর শাস্ত্রী দুজনের জন্যই ছিল সমাপ্তিরেখা। কোহলি বিশ্বকাপের পর ভারতের টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব না করার ঘোষণা দিয়েছেন আরও অনেক আগে। আর বিশ্বকাপের পরই ভারতের বোর্ডের সঙ্গে শাস্ত্রীর চুক্তি শেষ হয়ে যেত।

সে চুক্তি যে আর নবায়ন হচ্ছে না, সেটাও অনেকটা নিশ্চিত ছিল। শাস্ত্রীর বদলে যে দ্রাবিড় কোচ হচ্ছেন, সেটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা বিসিসিআই দিয়েছিল ৩ নভেম্বর বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ভারতের ম্যাচ চলার সময়ে!

default-image

ইনজামামের মনে হচ্ছে, বিশ্বকাপের আগেই কোচ-অধিনায়কের সরে যাওয়া নিশ্চিত হওয়ার কারণেই বিশ্বকাপে ভালো করতে পারেনি ভারত। ‘ম্যাচের আগেও এটা বলেছি যে টুর্নামেন্টের আগেই অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়ার এই বিবৃতি যে দিল (কোহলি), সেটা ভালো হয়নি। আপনার সামনে একটা বড় টুর্নামেন্ট, এর আগে এমন কিছু বোঝায় যে আপনার ওপর চাপ বাড়ছে, আপনি স্বস্তিতে নেই। আর ওরা তো টুর্নামেন্টের আগেই জানত যে শাস্ত্রীর বদলে দ্রাবিড় আসছে’—পাকিস্তানের টিভি চ্যানেল এআরওয়াইকে বলেছেন ইনজামাম।

বিশ্বকাপ জিততে চাইলে এভাবে বিশ্বকাপের আগে কিংবা বিশ্বকাপের মধ্যে ঘোষণাগুলো দেওয়া উচিত হয়নি ভারতের, এমনটাই মনে হচ্ছে ইনজামামের, ‘এত বড় একটা ইভেন্টের আগে এমন কিছু হওয়া উচিতই ছিল না। আপনার দলের নেতৃত্বই বদলে দিচ্ছেন! আর এটার মানে তো কোহলি, শাস্ত্রী আর বোর্ডের মধ্যে সম্পর্ক ভালো ছিল না। ভারত যদি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতার মতো অবস্থায় থাকত, তাহলে কি তারা অধিনায়ক আর কোচ বদলাত? ওদের মধ্যে কিছু ঝামেলা ছিলই!’

default-image

ভারতের বিশ্বকাপ ব্যর্থতার শুরু পাকিস্তানের কাছে হেরেই। টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শাহিন শাহ আফ্রিদির চোখধাঁধানো বোলিংয়ের সামনে হাঁসফাঁস করতে থাকা ভারত শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানের কাছে সেদিন ১০ উইকেটে হেরে যায়। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে হারের ধাক্কাটা এমনই ছিল যে ভারত পরের ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারেনি। পরপর দুই ম্যাচে হারের পরই ভারতের টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায়। এরপর আফগানিস্তান আর নামিবিয়ার বিপক্ষে বড় ব্যবধানে জিতলেও ভারত আর বিদায় ঠেকাতে পারেনি।

প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ৩১ রানে ৩ উইকেট নেওয়া শাহিন আফ্রিদির বোলিংয়ের প্রশংসা আগেও করেছেন ইনজামাম, এবার এআরওয়াই নিউজেও করেছেন। পাশাপাশি ইনজামামের প্রশংসা ছুটেছে পাকিস্তানের পুরো ফাস্ট বোলিং নিয়েই! সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক তো বলেই দিলেন, ‘ভারতের বিপক্ষে আমাদের ফাস্ট বোলাররা নিজেদের দাপট দেখিয়েছে। আমাদের সব সময়ই দারুণ পেস–ব্যাটারি ছিল। সব দলই পাকিস্তানের বোলিংয়ের মুখোমুখি হতে কিছুটা ভয়ে থাকে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন