default-image
>

ভারত শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হতে পারে, কিন্তু বাংলাদেশ ভারতকে এজবাস্টনে শক্ত পরীক্ষায় ফেলবে, এমনটাই মনে করেন বাংলাদেশের স্পিন বোলিং কোচ সুনীল যোশী।

ভারত তাঁকে ঘরের শত্রু ভাবতেই পারে। বাংলাদেশ স্পিন বোলিং কোচ সুনীল যোশীর তাতে আপত্তি থাকার কথা নয়। তাঁর আপত্তি যদি কিছু থাকে, সেটি হচ্ছে বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে নিরাশায় ডুবে থাকা। ভারত শক্তিশালী দল, কিন্তু বাংলাদেশ যে মানের ক্রিকেট এবারের বিশ্বকাপে খেলছে, তাতে ভারতকে হারানো অসম্ভব কিছু নয় বলেই বিশ্বাস তাঁর।

যোশীর মতে, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ একেবারেই নিজেদের ব্র্যান্ডের ক্রিকেট খেলছে। যেটি ইতিমধ্যেই কার্যকর প্রমাণিত। ২ জুলাই বার্মিংহামের এজবাস্টনে সে ধরনের ক্রিকেটটা ঠিকমতো খেলতে পারলে ভারতকে চাপে ফেলা সম্ভব, ‘সাদা বলের ক্রিকেটে আমরা কতটা ভালো, তা ইতিমধ্যেই দেখিয়ে দিয়েছি। আমরা আয়ারল্যান্ডে জিতেছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিজেদের মাঠের পাশাপাশি তাদের মাঠে গিয়েও হারিয়েছি। গত তিন বছরে তিনবার আমরা ভারতকে হারানোর খুব কাছে চলে গিয়েছিলাম।’

২০১৫ বিশ্বকাপের পর বাংলাদেশ সফরে এসে ওয়ানডে সিরিজ হেরেছিল ভারত। এরপর অবশ্য তাদের বিপক্ষে জয়টা অধরাই থেকে গেছে। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল কিংবা গত বছর দুবাইয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরেছে বাংলাদেশ। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বেঙ্গালুরুতে জিততে জিততে অবিশ্বাস্যভাবে হেরে যাওয়া কিংবা কলম্বোয় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে জয়ের কাছাকাছি গিয়েও ফিরে আসার দুঃখস্মৃতি আছে বাংলাদেশের। এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য অনেকটাই বাঁচা-মরার।

কিন্তু বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মাদের সঙ্গে ভারতীয় বোলাররা যে ধরনের ফর্মে আছেন, বাংলাদেশের খুব কড়া সমর্থকও এ ম্যাচ নিয়ে আশাবাদী হওয়ার আগে একটু ভেবে নিচ্ছেন। তবে বাংলাদেশ দলের স্পিন কোচ যোশী আত্মবিশ্বাসটা ধরেই রেখেছেন, ‘প্রতিটি দলের শক্তি ও দুর্বলতার জায়গা থাকে। ভারতেরও দুর্বল জায়গা আছে। যেকোনো ব্যাটসম্যানকে আউট করার জন্য একটি বলই যথেষ্ট। আবার বলছি, আমরা কিন্তু তিনবার ভারতকে হারানোর খুব কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলাম। আমরা কিন্তু এখন আর কোনো ফেলনা দল নই।’

ভারতের বিপক্ষে ‘কুলচা’স্পিন-জোড় মানে কুলদীপ যাদব ও যুজবেন্দ্র চাহালের ঘূর্ণি বাংলাদেশের জন্য বিপদের কারণ হতে পারে। বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি ম্যাচে কিন্তু এই দুই স্পিনারই ভাবনার কারণ হয়েছিলেন বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের জন্য। ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের স্পিন খেলার সামর্থ্যও দুশ্চিন্তা তৈরি করছে। তবে যোশী কিন্তু নির্ভার, ‘আমরা সবাই জানি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা স্পিন খেলতে পারে খুব ভালো। আমরাও কিন্তু স্পিন যথেষ্ট ভালো খেলি। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওদের তিন স্পিনারের বিপক্ষে আমরা দুর্দান্ত খেলেছি। ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচেও কিন্তু আমরা স্পিন ভালো খেলেছি। এখন আমাদের ধারাবাহিক হতে হবে। প্রতিটি ম্যাচেই ভালো করতে হবে। আমরা জানি, ভারতীয় স্পিনারদের খেলার সময় কোন কোন বিষয় আমাদের মাথায় রাখতে হবে।’

এজবাস্টনে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা তাঁদের তাত্ত্বিক জ্ঞান প্রয়োগ করতে পারেন কি না, সেটি দেখারই অপেক্ষায় বাংলাদেশের মানুষ!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0