দেশে ফিরলেন সাকিব।
দেশে ফিরলেন সাকিব।ছবি: প্রথম আলো

অবশেষে দেশে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান। গত ২৯ অক্টোবর আইসিসির নিষেধাজ্ঞা কেটে যাওয়ার পর থেকেই সাকিবের দেশে ফেরার অপেক্ষায় ছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে কাতার এয়ারওয়েজে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে ফিরেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

সাকিবের এবারের দেশে ফেরা নিশ্চয়ই তাঁর কাছ স্মরণীয় হয়ে থাকবে। গত এক বছরের নিষেধাজ্ঞার ভারমুক্ত হয়ে দেশে ফিরেছেন তিনি। নিষিদ্ধ হওয়ার পর গত রাতেই প্রথম সাংবাদিকদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছেন। সেখানে তিনি নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার স্বস্তির কথাই জানিয়েছেন, ‘এবারের ফেরাটা অবশ্যই ব্যতিক্রম, অন্যান্যবার হয়তো কোনো জায়গা থেকে খেলে আসি বা কোনো জায়গা থেকে ঘুরে শেষে দেশে ফিরি। এবারও হয়তো কোনো একটা কাজ শেষে আসলাম দেশে। কিন্তু এবার যেটা হলো মাথার ওপর যে চাপ ছিল সেটা ঝেড়ে আসতে পারলাম।’

default-image
বিজ্ঞাপন

গত রাতে বিমানবন্দরে সাকিবকে বেশ চনমনেই মনে হয়েছে। কারণটা বোধগম্যই, এ ফেরায় যে ভারমুক্তির আনন্দ আছে, ‘আপনাদের দেখে ভালো লাগছে সবাই এখানে। অবশ্যই এবার একটা স্বস্তি নিয়ে এসেছি। এর আগে যখন এসেছি তখন তো এ রকম স্বস্তিতে ছিলাম না। কিন্তু এখন সে জায়গা থেকে অনেকটা স্বস্তিবোধ করছি। এখন আমার দায়িত্ব হচ্ছে সবার এই ভালোবাসা, দোয়া ও সমর্থনের প্রতিদান দেওয়া।’

এ মাসেই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট দিয়ে সাকিবের মাঠে ফেরার কথা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার আগে টি-টোয়েন্টি খেলে নিজেকে প্রস্তুত করতে চান। তবে ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে সাকিবের কোনো তাড়াহুড়ো নেই। সঠিক প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে ফিরতে চান, ‘আমি আশা করব যত দ্রুত সম্ভব (আগের অবস্থায় ফিরে আসার।) তবে আমি তাড়াহুড়ো করতে চাই না। অন্য সবার মতো আমারও সময়ের প্রয়োজন। আশা করি সময় পাব। নিজেকে আবার আগের মতো তৈরি করে নিতে পারব।’

জানুয়ারিতে বাংলাদেশে খেলতে আসার কথা ওয়েস্ট ইন্ডিজের। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি দিয়ে ক্যারিবীয়দের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করার লক্ষ্য সাকিবের, ‘আসলে সব খেলাই প্রতিটি খেলোয়াড়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আমার প্রস্তুতি অনেক ভালো হবে যদি পুরোটা টুর্নামেন্ট খেলতে পারি ভালোভাবে। যেহেতু ওয়েস্ট ইন্ডিজের আসার কথা সামনে সেদিক থেকে চিন্তা করলে প্রস্তুতির জন্য এই টুর্নামেন্টই একমাত্র জায়গা। সব খেলোয়াড়ই প্রকৃতপক্ষে প্রস্তুতিটা নিতে পারবে।’

মন্তব্য পড়ুন 0