বিষয়টি নিশ্চিত করে বিসিবির আম্পায়ার্স বিভাগের এক সূত্র বলছিলেন, ‘যেহেতু একটা ভুল হয়েছে, আমরা তাঁর ভাষ্যটা জানতে চাইব। এর বেশি কিছু না। যেহেতু একটা ঘটনা ঘটেছে, সেদিকে দৃষ্টি দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

বিসিবির আম্পায়ার্স কমিটিও আম্পায়ার মাসুদুরের কাছে এমন ভুলের ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে বিসিবির আম্পায়ার্স বিভাগের এক সূত্র বলছিলেন, ‘যেহেতু একটা ভুল হয়েছে, আমরা তাঁর ভাষ্যটা জানতে চাইব। এর বেশি কিছু না। যেহেতু একটা ঘটনা ঘটেছে, সেদিকে দৃষ্টি দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

অমিত মজুমদার ও অমিত হাসানের জোড়া ফিফটির পরও ২০ রানে হেরেছে খেলাঘর। যদিও ম্যাচ শেষে আলোচনায় ছিল হাসানুজ্জামানের সেই আউটটি। জানা গেছে, খেলাঘরের অধিনায়ক মাসুম খানের প্রতিবেদনেও বিষয়টি উল্লেখ ছিল।

আম্পায়ারিং নিয়ে এই বিতর্ক ছাড়া প্রিমিয়ার লিগে গতকালের দিনটা আসলে এনামুল হকের। লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের ১৩তম শতকের পর তিনি এগিয়ে যাচ্ছিলেন দ্বিশতকের দিকে। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশিদের মধ্যে যে অর্জন শুধু সৌম্য সরকারেরই। কিন্তু দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে দ্বিশতক শেষ পর্যন্ত পেলেন না এনামুল।

default-image

খেলাঘরের বিপক্ষে তাঁর ইনিংসটা শেষ পর্যন্ত থেমেছে ১৪২ বলে ১৮৪ রানেই। প্রাইম ব্যাংকের এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের মধ্যে অবশ্য রেকর্ড গড়তে না পারার আক্ষেপ নেই, ‘যখন ক্যাপ খুলে ব্যাট উঁচু করে সবাইকে দেখাই, সেটা খুবই শান্তির বিষয়, ভালো লাগার বিষয়। ছোটবেলা থেকেই এটা খুব পছন্দ করি। চেষ্টা করব যেন এমন শতক আরও করতে পারি, দলের জয়ে যেন আরও অবদান রাখতে পারি।’

শাইনপুকুরের বিপক্ষে প্রাইম ব্যাংকের জয় অবশ্য প্রথম ইনিংসেই নিশ্চিত হয়ে গেছে। এনামুলের ক্যারিয়ার–সেরা ১৮৪ রানের পর নাসির হোসেনের ৩২ বলে অপরাজিত ৬১ রানের ইনিংসে প্রাইম ব্যাংক করেছে ৫ উইকেটে ৩৮৮ রান, যা বাংলাদেশের লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দলীয় রান।

সেই রানের পেছনে ছুটতে গিয়ে ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৭৭ রান করেছে শাইনপুকুর। সিকান্দার রাজা ৯৮ ও সাজ্জাদুল হক ৫৬ রান করেন। প্রাইম ব্যাংকের ১১১ রানের বিরাট জয়ে ম্যাচসেরা এনামুলই।

রান বন্যার ম্যাচটি অবশ্য ভিন্ন কারণেও আলোচনায় এসেছে। প্রাইম ব্যাংকের ইনিংসের ৪০তম ওভারে আলাউদ্দিন বাবুর বলে পুল শট খেলে বল আকাশে তোলেন মোহাম্মদ মিঠুন। শাইনপুকুরের অধিনায়ক মাহিদুল ইসলাম সহজ ক্যাচটি ধরতেই গিয়েও যেন ধরলেন না! বোলার আলাউদ্দিন শরীরীভাষায় তখন অবিশ্বাস। ৬ রানে অপরাজিত ব্যাটসম্যান মিঠুন শেষ পর্যন্ত ৩৮ রান করেন।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন