default-image

সংবাদমাধ্যমে খবরটি ফলাও করে প্রকাশ হয়েছিল। ইংলিশ অলরাউন্ডার মঈন আলী নাকি তাঁর দল চেন্নাই সুপার কিংসকে অনুরোধ করেছিলেন, তাঁর জার্সিতে মদ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের লোগোর নাম না রাখতে। আইপিএলের এই ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটি নাকি মঈনের অনুরোধ মেনেও নিয়েছিল। কিন্তু চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাশী বিশ্বনাথন আজ সংবাদমাধ্যমকে জানান, মঈন আলী এমন কোনো অনুরোধ করেননি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে কাল জানানো হয়, ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে মদ্যপান করা কিংবা তাতে উৎসাহও দেন না ইংল্যান্ডের এই মুসলিম ক্রিকেটার। আর তাই নিজের জার্সি থেকে ভারতের বিয়ার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এসএনজি ১০০০০-এর লোগো মুছে ফেলতে বলেন তিনি। চেন্নাইয়ে এসএনজি ডিস্টিলারিজের অধীনে এই বিয়ার বানানো হয়। তারা এবার আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের অন্যতম স্পনসর। এবারই নতুন জার্সি উন্মোচন করেছে চেন্নাই। জার্সিতে বিয়ার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটির লোগো আছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

কিন্তু ভারতের সংবাদ সংস্থা আইএএনএসকে চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহী কাশী বিশ্বনাথন বলেন, ‘লোগো মুছে ফেলতে মঈন চেন্নাই সুপার কিংসকে কোনো অনুরোধ করেননি।’ ভারতের সংবাদমাধ্যম ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’কেও বিশ্বনাথন বলেছেন, ‘মন্তব্যটি ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে। কেউ এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন তোলেনি। এমনকি কোনো খেলোয়াড় কিংবা আমরাও এ নিয়ে কথা বলিনি লোগো তুলে নেওয়া নিয়ে।’

তবে আইপিএলে ব্যাপারটা যে একেবারে নতুন, তা নয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও নয়। মুসলিম ক্রিকেটার জার্সিতে মাদক-সংশ্লিষ্ট কোম্পানির লোগো রাখেননি, তাঁর অনুরোধ মেনেও নিয়েছে তাঁর দল—এমন খবর তো কম দেখা যায়নি! মঈন আলীও তেমনি জাতীয় দল কিংবা ঘরোয়া দলের জার্সিতে মাদকসংশ্লিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠানের লোগো পছন্দ করেন না। হাশিম আমলা অনেকবার এ কারণে শিরোনামে এসেছেন। কী দক্ষিণ আফ্রিকা, কী ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট...কোনো জায়গায়ই জার্সিতে মদসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের লোগো রাখার ব্যাপারটা মেনে নেননি দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান। একই পথে হেঁটেছেন পাকিস্তানের বাবর আজম, ফাহিম আশরাফ, কিংবা দক্ষিণ আফ্রিকা দলে আমলার সতীর্থ পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ইমরান তাহিরও।

default-image

ইংল্যান্ডের ক্রিকেটের সবচেয়ে গর্বের মুহূর্ত ২০১৯ বিশ্বকাপ জয়ের পর মঈনের আচরণও প্রশংসা কুড়িয়েছে ইসলামপন্থী মানুষের। লর্ডসের গ্যালারিতে বিশ্বকাপ হাতে শ্যাম্পেন উৎসবে মেতেছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। সেখানেও দারুণ নিয়ন্ত্রণের প্রদর্শনী ছিল মঈন আলীর আচরণে। লর্ডসের ব্যালকনিতে শিরোপা হাতে দল যখন শ্যাম্পেন উৎসবে মত্ত, মঈন নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন এক কোণে।

আইপিএলে এবার মঈনকে ৭ কোটি রুপি খরচ করে কিনেছে চেন্নাই। চেন্নাইয়ে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির অধীনে খেলা নিয়ে মঈন এর আগে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছিলেন, ‘ধোনির অধীনে যারা খেলেছে তাদের কাছে শুনেছি নিজেদের উন্নতির কথা। একজন অসাধারণ অধিনায়কই কেবল এ ক্ষমতা রাখেন।’

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন