মালিঙ্গার পর তাসকিন ও দক্ষিণ আফ্রিকার সর্বনিম্ন

ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বার ৫ উইকেট নিয়েছেন তাসকিন আহমেদছবি: এএফপি

১৫৪

বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডেতে দক্ষিণ আফ্রিকার দলীয় সর্বনিম্ন। আগের সর্বনিম্ন ১৬২, ২০১৫ সালের ১৭ জুন মিরপুরে।

ওয়ানডেতে ঘরের মাঠে এ নিয়ে নবমবার ১৬০ রানের নিচে অলআউট হলো দক্ষিণ আফ্রিকার। সর্বশেষ তিনবারই সেঞ্চুরিয়নে।

তাসকিনের ৫ উইকেট...

• বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৫ উইকেট নিলেন তাসকিন। আগের সেরা এই সিরিজের প্রথম ম্যাচেই মেহেদী হাসান মিরাজের ৬১ রানে ৪ উইকেট।
• ২০১৪ সালের ১৭ জুন মিরপুরে ওয়ানডে অভিষেকে ৫ উইকেট নেওয়ার পর কালই প্রথম ওয়ানডেতে তাসকিনের ৫ উইকেট। অভিষেকে ভারতের বিপক্ষে ২৮ রানে ৫ উইকেট এখনো তাঁর ক্যারিয়ার–সেরা বোলিং।
• ২০১২ সালের পর প্রথম বোলার হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডেতে ৫ উইকেট নিলেন তাসকিন। সর্বশেষ ২০১২ সালে পার্লে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গা।

বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে একাধিকবার ৫ উইকেট পেলেন তাসকিন।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৫ উইকেট

মোস্তাফিজুর রহমান
৪ আবদুর রাজ্জাক
৩ সাকিব আল হাসান
২ তাসকিন আহমেদ

৫ বার ৫ উইকেট নিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান
ছবি: এএফপি

২১

ওয়ানডেতে ২১তম বার ৫ উইকেট পেলেন বাংলাদেশের কোনো বোলাররা। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বোলারদের ৫ উইকেট নেওয়ার সর্বশেষ ৬টি কীর্তিই দেশের বাইরে। বাংলাদেশের মাটিতে সর্বশেষ ২০১৫ সালের জিম্বাবুয়ে সিরিজে ওয়ানডেতে ৫ উইকেট নিয়েছেন বাংলাদেশের কোনো বোলার।

৮৩/৫

ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে এই ম্যাচেই সবচেয়ে কম রানে প্রথম ৫ উইকেট হারাল দক্ষিণ আফ্রিকা। এই ম্যাচের আগে ২০০৭ বিশ্বকাপে ৮৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছিল প্রোটিয়ারা। সেই ম্যাচে জিতেছিল বাংলাদেশ।

২০০ ক্যাচ ও ২৫০ ডিসমিসালের মাইলফলক ছুঁয়েছেন মুশফিকুর রহিম
ছবি: এএফপ

২৫০

চতুর্থ ক্যাচটি নিয়ে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ২০০ ক্যাচের মাইলফলক ছুঁয়েছেন মুশফিক। ৫০টি স্টাম্পিং করা মুশফিকের মোট শিকার এখন ২৫০। ইতিহাসের সপ্তম ফিল্ডার হিসেবে ওয়ানডেতে ২৫০ শিকার পেলেন মুশফিক।

বাংলাদেশের প্রথম উইকেটকিপার হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডেতে ৪টি ডিসমিসাল করেছেন মুশফিকুর রহিম।