বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ নিউজিল্যান্ডের পক্ষে দুটি সাফল্য নিল ওয়াগনারের। তিনি অবশ্য পুরোপুরি কৃতিত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের, ‘এটা বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদেরই কৃতিত্ব। তারা আসলেই খুব দারুণ খেলেছে। তারা লড়াই করেছে। ধৈর্য ধরে ব্যাটিং করেছে। মাঠের লড়াইটা যথেষ্ট কঠিন ছিল। এটা টেস্ট ক্রিকেটে দারুণ একটা লড়াকু দিন।’

default-image

ওয়াগনারের বিশেষ চোখ ছিল তরুণ মাহমুদুল হাসানের দিকে। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নেমে মাহমুদুল দিন শেষে অপরাজিত ৭০ রানে। ২১১ বল খেলা মাহমুদুল আসলেই আজ নিউজিল্যান্ডের বোলারদের পরীক্ষা নিয়েছেন। ওয়াগনার আলাদা করেই বলেছেন মাহমুদুলের কথা, ‘তরুণ ব্যাটসম্যানটি (মাহমুদুল) অসাধারণ খেলেছে আজ। খুব ধৈর্য নিয়ে খেলেছে সে। বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের কেউই খুব বেশি সুযোগ দেয়নি আমাদের। উইকেটে টিকে থাকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে গেছে তারা। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের খেলা দেখে মনে হয়েছে টিকে থাকার প্রস্তুতি নিয়েই তারা নেমেছিল। প্রচুর বল ছেড়েছে তারা। তাদের ব্যাটিংয়ে আমরা উইকেট নেওয়ার জন্য ঝাঁপিয়েছি, যেটি তাদের রান করার সুযোগটা বাড়িয়ে দিয়েছে। খুব ভালো খেলেছে বাংলাদেশ। সব কৃতিত্ব তাদের। মারার বলে মেরেছে। ঠেকানোর বলে খুব সাফল্যের সঙ্গে রক্ষণ করেছে।’

default-image

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের কন্ডিশনের কারণেই বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের খেলাটা বেশি অবাক করেছে ওয়াগনারকে, ‘কয়েক দিন ধরে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে খুব বাতাস। সাধারণত, এখানকার কন্ডিশন ফাস্ট বোলারদের সহায়তা করে। বাতাসের কারণে উইকেট শুষ্ক। কিছুটা স্পিনের জন্যও উপযোগী এখানকার পরিবেশ।’

default-image

বাংলাদেশ দলটা মোটেও হেলাফেলার নয় বলেই ধারণা ওয়াগনারের। বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা উইকেটে গিয়ে প্রচুর শট খেলেন, এটা তিনি জানেন। কিন্তু আজ মাঠে তিনি অন্য এক বাংলাদেশ দলকেই দেখেছেন এই কিউই সিমার, ‘বাংলাদেশ দলটা যথেষ্ট শক্তিশালী। যখনই তারা নিউজিল্যান্ড সফরে আসে, লড়াইটা ভালোই করে। আমাদের কন্ডিশনে তারা ভালো খেলে। সাকিব আল হাসানের মতো ক্রিকেটাররা অন্য মাত্রার খেলা খেলে। বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা প্রচুর শট খেলে। উইকেটে এসেই তারা মারতে চায়। সেটিই উইকেট তুলে নেওয়ার সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু তাদের মান নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন