বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে কাল অসাধারণ একটা দিন কাটানো বাংলাদেশের জন্য আজ তৃতীয় দিন সকালে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল, নতুন বল নেওয়ার আগে ১৩ ওভার ভালোভাবে পার করা। ভরসা হয়ে ছিলেন কাল ব্যাট হাতে দারুণ ধৈর্য দেখানো মাহমুদুল।

কিন্তু ৭০ রান নিয়ে দিন শুরু করা মাহমুদুল আজ শুরু থেকেই ছিলেন নড়বড়ে। পা নড়ছিল না, জায়গায় দাঁড়িয়ে শরীর থেকে দূরে শট খেলছিলেন বারবার। পরাস্ত হয়েছেন বেশ কয়েকবার, আউট হওয়ার আগের ওভারেই জেমিসনের অফ স্টাম্পের বাইরের হঠাত উঠে যাওয়া বলে শরীর থেকে দূরে রেখেই ব্যাট চালিয়েছেন, অল্পের জন্য আউট হননি। আউট হওয়ার আগের বলেও নিল ওয়াগনারের বলের লাইনে না গিয়ে শরীর থেকে দূরে রেখে ব্যাট চালিয়েছেন, বল বেশ কিছুক্ষণ বাতাসে ছিল।

কিন্তু পরের বলে আর বাঁচতে পারলেন না। শর্ট লেংথের বলে অলস শটে গালিতে ধরা পড়েছেন নিকোলসের হাতে।

default-image

এরপর বেশ নাটক হলো। পরের বলে, অর্থাৎ জেমিসনের করা পরের ওভারের প্রথম বলেই বোল্ড হতে হতে বেঁচেছেন মুমিনুল, ওয়াগনারের বাড়তি বাউন্সের বলে মুশফিকের ব্যাট ছুঁয়ে আসা বল শর্ট লেগে থাকা ফিল্ডার আর বোলারের একটু সামনে পড়ে। তার পরের বলেই অবশ্য দারুণ কাভার ড্রাইভে চার মারেন মুশফিক, সেটি আবার নো-বলও ছিল!

এই নো বলের কারণেই ৭৯তম ওভারে ওয়াগনারের বলে ব্লান্ডেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে যান মুমিনুল। তৃতীয় আম্পায়ারের রিপ্লেতে ধরা পড়ে নো বল! এর আগে ৭৫তম ওভারের প্রথম বলে বোলার জেমিসনের দিকেই ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান মুমিনুল। নতুন বল নেওয়ার আগে ৮০তম ওভারের শেষ দুই বলেই পরাস্ত হন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।
৮৫তম ওভারে ট্রেন্ট বোল্টের প্রথম বলে মুমিনুল ২ রান নিলে ২০০-তে পৌঁছায় বাংলাদেশ।

চার ওভার পর এই বোল্টের বলেই আউট মুশফিক। রাউন্ড দ্য উইকেট থেকে বোল্টের স্টাম্প সোজা বলে ফ্লিক করতে গিয়েছিলেন মুশফিক, কিন্তু বল তাঁর ব্যাট আর প্যাডের ফাঁক গলে আঘাত করে স্টাম্পে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন