বিজ্ঞাপন
default-image

টেস্টে শীর্ষ তিন উইকেটশিকারিই স্পিনার। মুরালিধরনের পরে আছেন শেন ওয়ার্ন (৭০৮)। ভারতের অনিল কুম্বলেকে (৬১৯) অবশ্য খুব বেশি দিন তিনে থাকতে দেবেন না অ্যান্ডারসন (৬১৪)। এখনো খেলছেন এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে তাঁর নতুন বল সঙ্গী স্টুয়ার্ট ব্রড প্রায় এক শ ব্যবধানে পিছিয়ে (৫১৭)।

সে তুলনায় অশ্বিন এখনো যোজন যোজন পিছিয়ে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একটু দেরিতে এসেছেন, বয়সও হয়ে গেছে ৩৪। ফলে অশ্বিন কখনো মুরালিধরনকে ছুঁতে পারবেন, এতটা আশা করা কঠিন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার সাবেক বাঁহাতি লেগ স্পিনার হগের ধারণা, যে গতিতে ছুটছেন, তাতে মুরালির রেকর্ড চেষ্টা করলে ভাঙতেও পারেন অশ্বিন।

৪০৯ উইকেট পাওয়া অশ্বিন এখন ভারতীয়দের মধ্যেই চারে আছেন। কিন্তু অশ্বিনের এই উইকেটগুলো এসেছে মাত্র ৭৮ টেস্টে। আর বর্তমানে ফিটনেস নিয়ে সচেতনতার যুগে অশ্বিনের পক্ষে আরও বহুদিন খেলা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব বলে মনে করেন হগ।

default-image

টাইমসনাওনিউজকে বলেছেন, ‘আমার ধারণা, ৪২ বছর পর্যন্ত খেলবে সে। হয়তো ওর ব্যাটিংয়ের মান পড়ে যাবে কিন্তু যত দিন যাবে, বল হাতে আরও ভয়ংকর হবে। অন্তত ৬০০–এর বেশি উইকেট পাবে বলে মনে করি। সে হয়তো মুত্তিয়া মুরালিধরনের রেকর্ডও ভাঙতে পারে!’

ছন্দে থাকা অশ্বিন ভয়ংকর। এরই মধ্যে টেস্টে ৩০ বার ইনিংসে ৫ উইকেট পেয়েছেন, ম্যাচে সাতবার নিয়েছেন ১০ উইকেট। প্রতি ৫২.৬ বলে টেস্টে উইকেট পান অশ্বিন। অন্তত ৩০০ উইকেট পেয়েছেন, এমন স্পিনারদের মধ্যে এদিক থেকে সবচেয়ে এগিয়ে ভারতের এই অফ স্পিনার। একসময় শুধু ঘরের মাঠেই সাফল্য পাওয়ার ‘দাগ’ নামের পাশে লেগে থাকলেও এখন প্রতিপক্ষের মাঠেও সাফল্য পেতে শুরু করেছেন অশ্বিন।

হগের ধারণা, এভাবে নিজের উন্নতি করতে পারাটাই অন্যদের চেয়ে অশ্বিনকে আলাদা করেছে, ‘সে এত ভালো কারণ, সে মানিয়ে নিতে জানে এবং ক্রিকেটার হিসেবে আরও ভালো হওয়ার ক্ষুধা আছে। ইংলিশ কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সে কাউন্টি খেলেছে এবং এ কারণেই গত কয়েক বছরে এত সাফল্য পাচ্ছে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন