default-image

ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচের আগে স্নায়ুচাপে ভুগছে দুই দলই। এটি কি খেলোয়াড়েরা বেশি টের পাচ্ছেন, নাকি দর্শকেরা?
ব্যক্তিগতভাবে আমি যতটা না উদ্বিগ্ন, তার চেয়েও বেশি রোমাঞ্চিত। এমসিজিতে (মেলবোর্ন ক্রিকেট ক্লাবে) আমার অসাধারণ কিছু স্মৃতি আছে। এখানে আমাদের রেকর্ডও খুবই ভালো। ২০০৮ সালে শত বছরের চেষ্টায় এখানেই প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিততে পেরেছিলাম।
এই মাঠে প্রথম পা রাখার সময়েই একটা শ্বাসরোধ করা উত্তেজনা আমাকে পেয়ে বসেছিল। কিন্তু সেটি মিলিয়ে যাওয়ার পর বুঝতে পেরেছিলাম আমি কতটা সৌভাগ্যবান। এত বড় মাঠে, এত লোকের সামনে কিছু করার সুযোগ খুব বেশি মানুষের হয় না। যেটা করতে পছন্দ করি, এত বড় মঞ্চে সেটা করার সুযোগ পেয়েছি, এই উচ্ছ্বাসেই আমি ভেসে গিয়েছিলাম।
আজকের উপলক্ষটা বিশাল। আইপিএলে দুর্দান্ত ভারতীয় দর্শকদের দেখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। অভিজ্ঞতা হয়েছে দারুণ কিছু স্টেডিয়ামে, অবিশ্বাস্য আবহে খেলার, অনেকে যেটির কেবল স্বপ্নই দেখে। ধারণা, আজ ৯০ হাজারের মতো দর্শক থাকবে, বেশির ভাগই অবশ্য ভারতীয়। খেলোয়াড়দের জন্য এটা হবে অনেক দিন মনে রাখার মতো একটা ম্যাচ।
আমার জন্য ম্যাচের প্রস্তুতি খুব ভালো হয়নি, ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে কয়েকটা দিন কাটিয়েছি বিছানায়। ঠান্ডা লাগা নাক আর ভাঙা গলা নিয়েও আমি খেলতে পারি, কিন্তু এটা তার চেয়েও বেশি কিছু ছিল। শুধু শুক্রবারই নেটে কয়েকটা ওভার বল করতে পেরেছি। তবে এখন আমি নিশ্চিত, ম্যাচের দিন পুরোপুরি তৈরিই থাকব।
হোটেলও ভারত সমর্থকদের ভিড়ে গমগম করছে। বাতাসে কেমন ‘আইপিএল, আইপিএল’ ভাব। ভারত সমর্থকদের এই স্বতঃস্ফূর্ততা আমি পছন্দই করি। এ নিয়ে আমার কোনো অভিযোগ নেই। এটা বরং আমাকে মনে করিয়ে দেয় আমরা কতটা সৌভাগ্যবান।
একটি করে ম্যাচ শেষে ২ পয়েন্ট নিয়ে দুই দলই একই সমান্তরালে। পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচের পর গত দুই মাসে অস্ট্রেলিয়ার অভিজ্ঞতা ভারত হয়তো ভুলেই গেছে। টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজের স্মৃতি এখন আগের অনেক কিছু মনে হতেই পারে। ওরা দারুণ চাঙা হয়েই নামবে আজ।
আমরাও প্রথম ম্যাচ থেকেই প্রেরণা নিচ্ছি। আশা করি, কোয়ার্টার ফাইনালসহ বাকি টুর্নামেন্টে আমরা নিজেদের সেরাটাই দিতে পারব। আমাদের কোনো তাড়া নেই। নিজেদের কাজ ঠিকঠাক করার জন্য এক মাস তো পড়েই আছে। টুর্নামেন্টটা অনেক লম্বা, ম্যাচের মতো ম্যাচের বাইরের সময়টাও গুরুত্বপূর্ণ।
মাঠের বাইরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে আমি সব সময়ই ভালোবাসি। স্ত্রী ও সন্তানকে পাশে পাওয়া অন্য রকম একটা অনুভূতি, এটা আপনাকে মানসিকভাবে স্থির রাখতেও সাহায্য করে। ক্রিকেটে জয়টাই বড় কথা, আমি সেটির জন্য সম্ভাব্য সবকিছুই করব, কিন্তু এটা জীবন-মৃত্যু নয়।
ফ্লু আমাকে হয়তো একটু ভড়কে দিয়েছে, কিন্তু আউট করতে পারেনি! (গেমপ্ল্যান)

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন