default-image

এ কাজটা আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে যেমন সফলতার সঙ্গে করতে পেরেছেন, এবারের আইপিএলেও তাই করছেন কার্তিক। টি–টোয়েন্টিতে কার্তিকের ভারত দলে অভিষেক ২০০৬ সালে, জোহানেসবার্গে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। অভিষেকেই নিজের কাজটা সফলভাবে করতে পেরেছিলেন কার্তিক। সেই ম্যাচে ১২৭ রানের জয়ের লক্ষ্য ছিল ভারতের। ১১.১ ওভারে দলের ৭১ রানে মহেন্দ্র সিং ধোনি আউট হয়ে গেলে ৫ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাটিংয়ে নামেন কার্তিক। ২৮ বলে অপরাজিত ৩১ রান করে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। অভিষেকেই পেয়ে যান ম্যাচসেরার পুরস্কার।

default-image

এমন আরও অনেক ম্যাচ জেতানো ইনিংস ভারতের জন্য খেলেছেন কার্তিক। বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তদের হতাশ করে ২০১৮ সালের নিদাহাস ট্রফিতে কলম্বোতে তেমনই একটি ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। বাংলাদেশের ১৬৬ রান তাড়া করতে নেমে ১৮ ওভারে ১৩৩ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত। কার্তিক যখন ব্যাটিংয়ে নামেন, ১২ বলে ভারতের প্রয়োজন ছিল ৩৪ রান। রুবেল হোসেনের করা ১৯তম ওভারে ২২ রান নিয়ে কাজটা সহজ করে ফেলেন কার্তিক। পরে ম্যাচের শেষ বলে সৌম্য সরকারের অসাধারণ একটি বলে ছক্কা মেরে ভারতকে জিতিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতেন তিনি।

এবারের আইপিএলে এখন পর্যন্ত ৬ ম্যাচ খেলে কার্তিকের রান ১৯৭। এই রান তিনি করেছেন ঈর্ষণীয় ২০৯.৫৭ স্ট্রাইক রেটে। গতকাল দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে বেঙ্গালুরুকে জেতাতে খেলেছেন ৩৪ বলে অপরাজিত ৬৬ রানের ইনিংস। কার্তিকের এই ইনিংসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের দুঃখ! কারণ, ইনিংসটি খেলার পথে দিল্লিতে খেলা বাংলাদেশের পেসার মোস্তাফিজুর রহমানের এক ওভারে কার্তিক একাই নিয়েছেন ২৮ রান। প্রথম তিন বলে টানা তিনটি চার, পরের দুই বলে দুটি ছক্কা এবং শেষ বলে চার!

default-image

এমন একটি ইনিংস খেলার পর কার্তিক আবার সবাইকে মনে করিয়ে দিয়েছেন তাঁর সেই স্বপ্নের কথা। ম্যাচ শেষে ম্যাচসেরার পুরস্কার নিতে গিয়ে ভারতের উইকেটকিপার–ব্যাটসম্যান আসন্ন টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জাতীয় দলে হয়ে খেলার স্বপ্নের কথা বললেন এভাবে, ‘আমাকে বলতেই হবে যে আমার বড় একটা লক্ষ্য আছে। সত্যি আমি কঠিন পরিশ্রম করছি। আমি দেশের জন্য বিশেষ কিছু করতে চাই। ভারত দলে ফেরার জন্য আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।’

৩৬ বছর বয়সী কার্তিকের স্বপ্নপূরণ হবে কি না, সময়ই দেবে সেই উত্তর!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন