default-image

চলে এসেছে সেই মাহেন্দ্র ক্ষণ! আর ক্যালেন্ডারের পাতা নয়, চোখ রাখতে হবে বরং ঘড়ির কাঁটার দিকে। দীর্ঘ চার বছর পর ক্রিকেট-রোমান্টিকদের শিহরণের ছোঁয়া দিতে ১৪ ফেব্রুয়ারি ক্রাইস্টচার্চে নিউজিল্যান্ড-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপের যাত্রা। তবে তার দুদিন আগেই কিছুক্ষণের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।
দ্বিতীয়বারের মতো তাসমান প্রতিবেশীরা বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসরটির আয়োজক। এর আগে ১৯৯২ বিশ্বকাপের আয়োজন করেছিল দেশ দুটি। ২৩ বছরের ব্যবধানে বদলেছে অনেক কিছুই, কিন্তু কমেনি ক্রিকেটের প্রতি অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড সমর্থকদের ভালোবাসা-অনুরাগ। তাই জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দিয়ে তাক লাগিয়ে দিতে চাইছেন এবারের আসরের আয়োজকেরা। তবে সবাইকে চমকে দিতেই কিনা অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ও নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ—দুই জায়গাতেই হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান! তবে মেলবোর্নের অনুষ্ঠানটিই মূল, টিভি দর্শকেরা দেখতে পারবেন এই অনুষ্ঠানটিই।
এর আগেও দারুণ সব আয়োজনের দায়িত্ব সফলভাবেই সামলেছে মেলবোর্ন। ১৯৫৬ অলিম্পিকের আয়োজকেরা ২০০৬ কমনওয়েলথ গেমসের আয়োজন করেছে দারুণভাবেই। অভিজ্ঞতার ভান্ডারে যোগ হয়েছে প্রতিবছরই টেনিস ও ফর্মুলা ওয়ানের মতো বড় বড় আসরের আয়োজনের অভিজ্ঞতা। তাই চোখধাঁধানো আয়োজনে নিশ্চিতভাবেই ক্রিকেটবিশ্বকে চমকে দিতে যাচ্ছে মেলবোর্ন।
মেলবোর্নের সিডনি মায়ার মিউজিক বোলে ১৪টি দেশের অধিনায়কদের সঙ্গে থাকছেন বিশ্বকাপের সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড়েরা। ক্রিকেটের রথী-মহারথীদের মিলনমেলায় সুরের মূর্ছনায় মোহাবিষ্ট করবেন পপতারকা জেসিকা হিলডা মাওবো, টিনা এরেনাসহ আরও অনেকেই। মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তুলে ধরা হবে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য। থাকবে একটা ‘বিশেষ ক্ষণ’, যেটা এখনো প্রকাশ করা হয়নি। তারপর লাল-নীল-সবুজ-বেগুনি অজস্র আলোর ঝলকানি আর আতশবাজির ভেলকিতে চমকে যাওয়ার পালা দর্শকদের!

ক্রাইস্টচার্চের অনুষ্ঠান উপভোগ করতে হলে যেতে হবে নর্থ হ্যাগলি। স্থানীয় আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, ওই সময়ে ক্রাইস্টচার্চের আকাশ থাকবে বিষণ্ণ, অন্ধকারাচ্ছন্ন। আলতো করে বাতাসের মৃদু স্পন্দন ছুঁয়ে যাবে না। তবে স্থানীয় সময় রাত নয়টায় শুরু হওয়া অনুষ্ঠানের মূল পর্বটি এত বেশি জমকালো হতে চলেছে যে প্রকৃতির বিষণ্ণতা নিমেষেই উধাও হয়ে যেতে বাধ্য! অনুষ্ঠানে থাকছেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের তিন দিকপাল—কিংবদন্তি রিচার্ড হ্যাডলি, সাবেক অধিনায়ক স্টিভেন ফ্লেমিং এবং বর্তমান অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। নিউজিল্যান্ডের কিংবদন্তি সব খেলোয়াড়ের অংশগ্রহণে একটি স্পেশাল ভিডিও ফুটেজ দেখানো হবে পর্দায়। সংগীত পরিবেশন করবেন সোল থ্রি মায়ো (নিউজিল্যান্ডের গায়ক-ত্রয়ী), জিনি ব্ল্যাকমোর, হেইলে ওয়েস্টেনের মতো তারকা শিল্পীরা। সঙ্গে আকাশ আলো করা আতশবাজী তো থাকছেই! তথ্যসূত্র: এনডিটিভিস্পোর্টস, জিনিউজ।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন