default-image

ঘরে থাকুন। নিরাপদ থাকুন।

এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বে সম্ভবত এ কথাটাই সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত হচ্ছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এ ছাড়া আর তেমন কিছুই করার নেই। আর তাই খেলোয়াড়দের নিরাপদে রাখতে থেমে গেছে ক্রীড়াঙ্গন। ঘরে অলস সময় কাটছে ক্রীড়াবিদদের। কথাটা পুরোপুরি ঠিক না। এই করোনাকালেও নিজেদের ঘষা-মাজা করছেন ক্রীড়াবিদরা। শুধু খেলার ঘষা-মাজা নয়, ঘর-গেরস্থালির ছোটখাটো বিষয়েও হাত পাকাচ্ছেন অনেকে। সৌম্য সরকারকে দেখুন, বিয়ের পর কদিন যেতে না যেতেই কেমন রান্না শিখে ফেলেছেন!

রান্না-বান্নার সঙ্গে ছেলেদের দূরত্ব নতুন কিছু না। বেশির ভাগ ছেলে এ কাজে যেন মানসিকভাবেই বেশ পিছিয়ে। রান্নাটা ঠিক করা হয়ে ওঠে না। কিংবা আগ্রহ পান না অনেকেই। ব্যাচেলর বাসার কথা অবশ্য ভিন্ন। ঠেলায় পড়লে অনেক কিছুই শিখতে হয়। সৌম্যর অবশ্য তেমন সমস্যা নেই। বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যান রান্না শিখছেন নিজ তাগিদেই। কাজে লাগাচ্ছেন ঘরে কাটানো সময়টুকু। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি প্রিয়ন্তি দেবনাথের সঙ্গে মালাবদলের পর ঘর-সংসারে সময় কাটছে বাঁ হাতি টপ অর্ডারের। তার একটি নমুনাও দেখালেন তিনি। নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিও ছেড়েছেন সৌম্য।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, চোস্ত পাচকের মতো ফ্রাইপ্যানের চারপাশে তেলটা গড়িয়ে নিচ্ছেন তিনি। পরোটা ভাজতেই এই আয়োজন। ইনস্টাগ্রামে এ ভিডিওর ক্যাপশনে সৌম্য লিখেছেন, ‘এটাই আমার প্রথম রান্নার প্রচেষ্টা! ডিম পরোটার সঙ্গে মুরগি!’

সৌম্যর ভক্ত থেকে অনুসারীরা এই ভিডিওতে নানা মজার মন্তব্যও করেছেন। একজন মজা করে লিখেছেন, ‘বিয়ের পরেই অত্যাচার শুরু। তীব্র নিন্দা জানাই।’ সৌম্যর ফ্রাইপ্যানে তেল গড়ানোর কৌশল নিয়ে মজা করেছেন আরেক অনুসারী। ব্যাটিংয়ের তাঁর হাত ও চোখের সমন্বয়ে স্ট্রোক খেলার দক্ষতা টেনে তিনি লিখেছেন, ‘হাত ও চোখের সুন্দর সমন্বয়।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0