বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ঘটনাটা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গত মঙ্গলবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের জয়ের পর পিটিভিতে সরাসরি সম্প্রচারিত আলোচনা অনুষ্ঠানে। ম্যাচে ৪ উইকেট নেওয়া হারিফ রউফের প্রশংসা করতে গিয়ে হারিসের উন্নতির পেছনে পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) হারিসের দল লাহোর কালান্দার্সের অবদানের কথা টেনে আনেন শোয়েব। কিন্তু নোমান তখন প্রসঙ্গ বদলে পাকিস্তানের আরেক ফাস্ট বোলার শাহিন শাহ আফ্রিদির প্রশংসা করতে থাকেন।

যুব দলে খেলেই শাহিনের উন্নতি, এ প্রসঙ্গ টেনে নোমান বলেন, পিএসএল নয়, বরং পাকিস্তানি পেসারদের উন্নতিতে যুব দলের অবদান। এভাবে রউফ-শাহিন টানাটানির একপর্যায়ে শোয়েবকে লাইভ অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে যাওয়ার উপদেশ দেন নিয়াজ। ‘আপনি অতি চালাক এবং অভদ্রের মতো আচরণ করছেন। আপনার উচিত এ অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে যাওয়া’ বলেই অনুষ্ঠানে বিজ্ঞাপন বিরতি দেন নিয়াজ।

লাখো দর্শক তো অনুষ্ঠানটি দেখেছেনই, তার ওপর সে সময়ে অনুষ্ঠানে অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কিংবদন্তি ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান স্যার ভিভ রিচার্ডস, সাবেক ইংলিশ ব্যাটসম্যান ডেভিড গাওয়ার, সাবেক পাকিস্তানি পেসার আকিব জাভেদ, সাবেক পাকিস্তানি অধিনায়ক রশিদ লতিফসহ অনেকে।

এভাবে এমন একটি অনুষ্ঠানে শোয়েবের মতো একজন তারকাকে অনুষ্ঠান সঞ্চালকের অপমান করা ইমরান খানেরও নজরে এসেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির সংসদবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী আলী মোহাম্মদ। গতকাল জিও টিভির অনুষ্ঠান ‘জিও পাকিস্তান’-এ আলী মোহাম্মদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী এ ঘটনায় দ্রুত পদক্ষেপ নিতে একটি কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

‘খুবই খারাপ লাগার মতো একটা ঘটনা এটা। কেউই দেশের চেয়ে বড় নয়, কেউই তার ক্ষমতার অপব্যবহার করতে পারবে না’—বলেছেন আলী মোহাম্মদ। পাশাপাশি জানিয়ে দেন, কারণ যা-ই হোক, কেউই অন্য কাউকে অপমান করার অধিকার রাখে না।

একজন সাধারণ মানুষকেও কোনো তারকা, রাজনীতিবিদ বা মন্ত্রীর মতো করে সম্মান করা উচিত বলে মন্তব্য করেন আলী মোহাম্মদ, ‘আপনি সরাসরি সম্প্রচারিত একটা অনুষ্ঠানের মধ্যে কাউকে বের হয়ে যেতে বলতে পারেন না। এটা চরম আস্পর্ধার!’

শোয়েবকে অপমান করার আগে শোয়েব কত বড় তারকা, সেটি সঞ্চালকের ভাবা উচিত ছিল জানিয়ে আলী মোহাম্মদ বলেন, ‘আখতার পাকিস্তানের পতাকাকে উঁচিয়ে ধরেছেন। শচীন টেন্ডুলকারের মতো ভারতীয় কিংবদন্তি ব্যাটসম্যানের মিডল স্টাম্প উড়িয়ে দিয়ে ভারতের দর্শকদের চুপ করিয়ে দিয়েছেন।’

default-image

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকাদের সঙ্গে এটা কোন ধরনের আচরণ, সে প্রশ্ন তুলে আলী মোহাম্মদ বলেন, ‘আখতারকে অপমান করার আগে ড. নিয়াজের এক শ বার ভাবা উচিত ছিল।’

অনুষ্ঠানে ড. নোমান যখন শোয়েবকে বের হতে বলে বিজ্ঞাপন বিরতিতে যান, এরপর বিরতি থেকে ফিরে নোমানের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি হালকা করার চেষ্টা করেছিলেন শোয়েব। এরপর একপর্যায়ে নোমানকে ক্ষমা চাইতে বলেন শোয়েব, কিন্তু নোমান তা করেননি। এরপরই সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে লাইভ অনুষ্ঠান ছেড়ে যান শোয়েব।

জিও টিভিতে গতকাল ইমরানের মনোভাব জানানোর সময়ে শোয়েবের এমন নমনীয় আচরণের কথাও আলাদা করে বলেছেন আলী মোহাম্মদ, ‘আখতারের প্রশংসা করব আমি, কারণ নিজের স্বভাবের বাইরে গিয়েও অনেক শান্ত ছিলেন তিনি। যেখানে তিনি নিজের ফাস্ট বোলারসুলভ আগ্রাসী আচরণের জন্য পরিচিত।’

নিয়াজ অবশ্য শুধু শোয়েব আখতারকে অপমান করেই থামেননি, এরপর হুমকি দিয়ে রাখেন, অন্য কাউকে এই অনুষ্ঠান সঞ্চালনাও করতে দেবেন না তিনি। এ ব্যাপারে প্রতিমন্ত্রী আলী মোহাম্মদ বলেন, পিটিভি একটি রাষ্ট্র পরিচালিত চ্যানেল, কারও পৈতৃক সম্পত্তি নয়।

কে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন, সে প্রসঙ্গে তুলে আলী মোহাম্মদ বলেন, ‘এমনকি পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীও সেটা (কে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন) ঠিক করে দিতে পারেন না।’

পাকিস্তানের প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যে ওই সঞ্চালকের ওপর ভীষণ খ্যাপা, সেটি আরও পরিষ্কার হলো আলী মোহাম্মদের পরের কথাগুলোয়, ‘নিয়াজের প্রতি আমার ব্যক্তিগত কোনো খেদ নেই। কিন্তু আমাদের জাতীয় তারকাদের অপমান করার কোনো অধিকার তাঁর নেই, সেটা করে তিনি পুরো জাতিকেই অপমান করেছেন। এ ব্যাপারে তদন্ত হবে এবং শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন