বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে আজ তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনের শেষ দিকে দলকে ২০৩ রানে রেখে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে মুশফিক ফেরার পর নেমেছেন লিটন। এখন পর্যন্ত বল খেলেছেন ৯৭টি, চার মেরেছেন ৬টি। মধ্যাহ্নবিরতির পর দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে লিটনের ব্যাট থেকেই বাউন্ডারি বেশি এসেছে, পরের দিকে বাউন্ডারি বেশি দেখেছে মুমিনুলের ব্যাট।

তবে শুধু বাউন্ডারির হিসাবই নয়, লিটনের ব্যাটিং পুরোটা সময়ই মুগ্ধতা ছড়িয়েছে। ছাড়ার বল দেখেশুনে দারুণভাবে ছাড়ছেন। আর যখন শট খেলছেন, মুগ্ধ করছেন বারবার। ৬টি চারের সবগুলোই এসেছে চোখজুড়ানো শটে। কখনো স্ট্রেইট ড্রাইভ, কখনো কাভার ড্রাইভ, তো কখনো ওয়াগনারের শর্ট বলকে আছড়ে মারছেন মিডউইকেটে।

নিয়ন্ত্রণ, আগ্রাসন, কব্জির ব্যবহার, রেশমি পেলব বোলানো শট, রক্ষণাত্মক শটেও আত্মবিশ্বাস.. লিটনের ইনিংসে মুগ্ধ না করে পারে না!

default-image

অন্যদিকে মুমিনুলও মধ্যাহ্নভোজের পর আরেকটু আগ্রাসী হয়েছেন, তবে সেশনের শুরুতে একটু নড়বড়েই লেগেছে তাঁকে। সেশনের প্রথম ওভারে জেমিসনের প্রথম বলেই পয়েন্টে লিটনের দারুণ শটে আসে ৩ রান, দ্বিতীয় বলেই এলবিডব্লুর আবেদন ওঠে মুমিনুলের বিরুদ্ধে। নিউজিল্যান্ড রিভিউ নিলেও সে যাত্রায় বেঁচে যান বাংলাদেশ অধিনায়ক।

পরের দুই ওভারে ওয়াগনারকে দুটি ও জেমিসনকে একটি চার মারেন মুমিনুল, তিনটিই দারুণ শটে। কিন্তু সেশনের তৃতীয় ওভারে জেমিসনের শেষ বলে কনুইয়ে বলের আঘাত পান মুমিনুল। ফিজিওর শুশ্রুষার পর অবশ্য ব্যাটিং চালিয়ে যেতে সমস্যা হয়নি তাঁর।

এরপরও জেমিসন-ওয়াগনারদের বলে দু-তিনবার পরাস্ত হয়েছেন মুমিনুল। তবে সেশন যত এগিয়েছে, মুমিনুলের শটে, শট নির্বাচনে নিয়ন্ত্রণ তত ভালো হয়েছে। এখন পর্যন্ত এই সেশনে ৭টি চার মেরেছেন তিনি, যেখানে তাঁর ১৭৫ বলের ইনিংসে সব মিলিয়ে চার ৮টি। ১০৮তম ওভারের শেষ বলে বোল্টকে নিজের ইনিংসের অষ্টম চারটি মেরেই অর্ধশতকে পৌঁছান মুমিনুল।

আর লিটন অর্ধশতকে পৌঁছেছেন চা বিরতির আগে শেষ ওভারে রাচিন রবীন্দ্রর বলে দুই রান নিয়ে।

মুমিনুলের অর্ধশতক এনে দেওয়া বাউন্ডারির পর সেশনে আর চার নেই বাংলাদেশের। হয়তো সেশনের শেষ দিকে এসে আর ঝুঁকি নিতে চাননি মুমিনুল-লিটন। বাংলাদেশ ইনিংসে কাগজে-কলমের হিসাবে ব্যবধান গড়ে দেওয়ার মতো শেষ জুটি যে এটিই!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন