বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মুম্বাই ইন্ডিয়ানস হয়তো রাহুলের পছন্দের প্রতিপক্ষ। ৫৬ বলের শতকটি মুম্বাইয়ের বিপক্ষে রাহুলের দ্বিতীয়। এবারের আইপিএলেরও দ্বিতীয় শতক এটি। রাজস্থান রয়্যালসের জস বাটলারের ব্যাট থেকে এসেছে প্রথম শতকটি। সেই ম্যাচেও প্রতিপক্ষ ছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এবারের আইপিএলে মুম্বাইয়ের বোলিং শক্তিতে যে ভাটা পড়েছে, সেটি আজ আরও একবার দেখিয়ে দিলেন রাহুল।

কুইন্টন ডি কক ইনিংসের শুরুতেই দ্রুত রান এনে দিয়েছেন লক্ষ্ণৌকে। ডি কক ১৩ বলে ২৪ রান করে আউট হলেও পাওয়ার প্লেতে ৫৭ রান পেয়ে যায় লক্ষ্ণৌ। এরপর মনিষ পান্ডে, মার্কাস স্টয়নিস, দীপক হুদার সঙ্গে ছোট ছোট জুটি গড়ে লক্ষ্ণৌর রানের গতি ঠিক রাখেন রাহুল।

default-image

৩৩ বলে অর্ধশত করা রাহুল আজ পরের ৫০ রান নিয়েছেন মাত্র ২৩ বলে। শেষ পর্যন্ত ৬০ বল খেলে ১০৩ রান করে অপরাজিত ছিলেন। ৯টি চার ও ৫টি ছক্কায় সেজেছে রাহুলের ইনিংস। মুম্বাইয়ের যশপ্রীত বুমরা বাদে প্রত্যেকেই ছিলেন খরচে। কোনো উইকেট না পেলেও বুমরার ৪ ওভার দেখেশুনে খেলে মাত্র ২৪ রান নিয়েছে লক্ষ্ণৌর ব্যাটসম্যানরা।

default-image

রান তাড়ায় রাহুলের মতো মুম্বাইয়ের অধিনায়ক রোহিতের কাছে বড় ইনিংসের আশা ছিল। কিন্তু আভেশ খানের বলে ৭ বল খেলে ৬ রান করে উইকেটকিপার ডি ককের তালুবদ্ধ হন রোহিত। হতাশ করেছেন ঈশান কিষান (১৩), সূর্যকুমার যাদব (৩৭), কাইরন পোলার্ডরা (২৫)। তিনে নামা প্রোটিয়া তরুণ ডেওয়াল্ড ব্রেভিসের ১৩ বলে ৩১ রানের বিধ্বংসী ইনিংসটি দীর্ঘ হলে মুম্বাইয়ের জয়ের সম্ভাবনা বাড়তে পারত। কিন্তু সেই আভেশের বোলিংয়ে আউট ‘বেবি এবি’ খ্যাত এই তরুণ। শেষ পর্যন্ত ১৮ রানের হার নিয়ে মাঠ ছেড়েছে মুম্বাই।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন