বাংলাদেশ সফরে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং অনেকটা নির্ভর করবে ল্যাথামের ওপর। তিনি গত চার বছর নিউজিল্যান্ডের টি-টোয়েন্টির ভাবনাতেই ছিলেন না। ২০১৭ সালে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি খেলা ল্যাথাম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন ১৩টি, ব্যাটিং করেছেন ১০ ইনিংসে। ১৬ গড় আর ১০৩ স্ট্রাইক রেটে রান করেছেন মাত্র ১৬৩। ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে তাঁর সর্বশেষ ম্যাচ ২০১৯ সালে।

default-image

ল্যাথামের মতোই অবস্থা হেনরি নিকোলস (৫ ম্যাচ) ও টম ব্লান্ডেলের (৩ ম্যাচ)। তিনজনই আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে অনিয়মিত। বাংলাদেশ সফরে নিউজিল্যান্ড দলের ‘অভিজ্ঞ’ ব্যাটসম্যান বলতে তাঁরাই, তবে সেটি টি-টোয়েন্টিতে নয়।

ল্যাথাম এই বিষয়টিকে দেখছেন চ্যালেঞ্জ হিসেবে, ‘দেশের হয়ে খেলাটাই অনুপ্রেরণার কারণ। আমি ব্যক্তিগতভাবে খুব বেশি টি-টোয়েন্টি খেলার সুযোগ পাইনি। সেদিক থেকে খুব রোমাঞ্চিত। দলে যারা আছে তাদের কেউই খুব বেশি ম্যাচ খেলেনি। এখানে ভালো খেলে সিরিজ জেতাই এখন আমাদের লক্ষ্য।’

default-image

এই সংস্করণে নেতা হিসেবেও নিজেকে প্রমাণ করতে চান ল্যাথাম। এর আগে কেন উইলিয়ামসনের জায়গায় ওয়ানডে দলের অধিনায়কত্ব করেছেন ল্যাথাম। এবার সুযোগ পাচ্ছেন টি-টোয়েন্টিতে, ‘এটা আমার জন্য অনেক বড় সম্মানের। আমি হয়তো এই সংস্করণে অনেক দিন ধরে খেলছি না। কিন্তু নিউজিল্যান্ড যেভাবে ক্রিকেটারদের খেলাচ্ছে, সেটা অনেকের জন্যই জাতীয় দলের দুয়ার খুলে দিচ্ছে। আমিও তাদের দলে আছি। আর দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে আমি সব সময়ই উন্নতি করতে চাই।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন