করুনারত্নে–থিরিমান্নে জুটিতে এসেছে ২০৯ রান।
করুনারত্নে–থিরিমান্নে জুটিতে এসেছে ২০৯ রান।ছবি: এএফপি

দীর্ঘ অপেক্ষার পর সাফল্য মিলেছে। সাফল্যটা এসেছে অভিষিক্ত শরিফুল ইসলামের হাত দিয়েই। দিনের শেষ সেশনে সেঞ্চুরিয়ান দিমুথ করুনারত্নের উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। এটাই হয়ে রইল পাল্লেকেলের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশের একমাত্র সাফল্য।

প্রথমদিনে অধিনায়ককে হারিয়ে শ্রীলঙ্কা ২৯১ রান তুলেছে। অন্য ওপেনার লাহিরু থিরিমান্নে অপরাজিত আছেন ১৩১ রানে। তিনে আছেন ওশাদা ফার্নান্দো কাল দিন শুরু করবেন ৪০ রান নিয়ে। উইকেটই পড়েছে মাত্র একটি। ফলে বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে শরিফুল ছাড়া অন্য সবাই যে প্রথম দিনে শূন্য হাতে ফিরছেন, সেটা হয়তো না বললেও চলত।

নাজমুল হোসেন নিশ্চয়ই আক্ষেপে পুড়ছেন। করুনারত্নে যে জীবন পেয়েছিলেন তাঁর কল্যাণেই। আর সে কুড়িয়ে পাওয়া জীবন নিয়েই তিনি সেঞ্চুরি (১৯০ বলে ১১৮) করে দেখিয়েছেন। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি করুনারত্নের ১২তম সেঞ্চুরি। অপর ব্যাটসম্যান লাহিরু থিরিমান্নে অপরাজিত আছেন ১৯০ বলে ৮৯ রান নিয়ে।

default-image
বিজ্ঞাপন

নাজমুল যখন করুনারত্নের ক্যাচটি স্লিপে ফেলে দেন তখন তিনি ২৮ রানে দাঁড়িয়ে। তাসকিনের বল তাঁর ব্যাট ছুঁয়ে স্লিপে দাঁড়িয়ে থাকা নাজমুলের দিকে গেলে, হাতে জমাতে না জমাতেই তা ফেলে দেন তিনি। শেষ পর্যন্ত তাঁকে ফিরিয়েছেন শরিফুল।

ওপেনিং জুটিতে টানা তিন টেস্টে ১০০ কিংবা এর বেশি রান করল শ্রীলঙ্কা। করুনারত্নে পেলেন টানা দুই শতরানের দেখা। পাল্লেকেলের প্রথম টেস্টে তো তাঁর ইনিংসটি ছিল ২৪৪ রানের।

আজ সকাল থেকে মোটামুটি ভালোই বোলিং করছিলেন তাসকিন। বেশ কয়েকটি বলে লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের বিপাকে ফেলেছিলেন। আবু জায়েদ আর শরিফুল ইসলামরাও মন্দ করছিলেন না। কিন্তু করুনারত্নে আর থিরিমান্নে কোনো সুযোগই দেননি। করুনারত্নে যখন ‘সুযোগ’ দিলেন, ঠিক তখনই সেটি পায়ে ঠেললেন নাজমুল।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন