বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

১৫৩ রানের হার না মানা ইনিংসে দুবার জীবন উপহার পেয়েছেন ধনঞ্জয়া। প্রথমবার ৫ রানে ছিলেন। উইকেটরক্ষক জশুয়া ডি সিলভা কঠিন সুযোগটি নিতে পারেননি। দ্বিতীয়বার যখন সুযোগ দিয়েছিলেন, ধনঞ্জয়ার রান তখন ১১৬। দুবারই দুর্ভাগা বোলার ছিলেন ভীরাস্যামি পেরমল।

প্রথমবার তবু ডি সিলভাকে দোষ দিতে পেরেছেন, পরেরবার নিজেই ক্যাচ ফেলেছেন পেরমল। দ্বিতীয়বার ধনঞ্জয়া যখন সুযোগ দিয়েছিলেন, তখন শ্রীলঙ্কা এগিয়ে ছিল ২১৮ রানে। আর ১ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কা লিডটা আর খুব বেশি বাড়াতে পারত কি না সন্দেহ। আর সে ক্ষেত্রে রেকর্ড রান তাড়ার লক্ষ্য পেতে হতো না ওয়েস্ট ইন্ডিজকে।

default-image

কিন্তু পেরমল সুযোগ হাতছাড়া করেছেন, আর ধনঞ্জয়াও লিডকে ২৭৯ রানে নিয়ে গেছেন। গলে রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড ২৬৮ রানের। আগামীকাল তাই সিরিজ বাঁচাতে কঠিন এক লক্ষ্যই পাবে সফরকারীরা।

অথচ সহজ এক লক্ষ্য পাওয়ার কথা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। গতকালই রানআউটের দুর্ভাগ্যে দুই উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা ৩ রানে পিছিয়ে দিন শুরু করেছিল। লিড ২৪ রান হতেই ৩ উইকেট হারিয়েছিল স্বাগতিক দল। সেখান থেকে পাথুম নিসাঙ্কাকে নিয়ে ৭৮ রানের জুটিতে ধস সামলেছেন ধনঞ্জয়া।

default-image

এরপর গতকালের নায়ক রমেশ মেন্ডিসের সঙ্গে ৫১ রানের জুটি গড়েছেন। কিন্তু এতেও মনে হচ্ছিল কিছু হবে না, যখন ২২১ রানে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে চোটগ্রস্ত অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ফিরলেন। শ্রীলঙ্কার লিড তখন মাত্র ১৭২।

এরপরই দুর্দান্ত সে জুটির জন্ম হলো। প্রায় ৩৫ ওভার উইন্ডিজ বোলারদের খাটিয়ে মারলেন দুজন। জুটিতে এল ১০৭ রান। ১১০ বলে ২৫ রান করে অপরাজিত এম্বুলদেনিয়া। অন্য প্রান্তে ইতিবাচক ধনঞ্জয়া জুটিতে ৯৮ বলে তুলেছেন ৭৩ রান। ১০০ রানে ৩ উইকেট পেয়েছেন পেরমল।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন