বিশ্বকাপ অভিষেকে নতুন কোনো রূপকথার জন্ম দিতে পারেনি আফগানিস্তান। তবে ক্যানবেরার মানুকা ওভালে বাংলাদেশের কাছে ১০৫ রানের হারে দমে যায়নি আফগানরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আবির্ভাবের পর থেকে প্রায় স্বপ্নের মতো পথচলা সাহস বাড়িয়ে দিয়েছে তাদের। সেই সাহস নিয়েই আগামীকাল ভোর চারটায় ডানেডিনে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হচ্ছে আফগানিস্তান।
এবার শুরুটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কারও। উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের কাছে ৯৮ রানে হেরেছে ১৯৯৬-এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। আজ আফগানদের কাছে কোনো অঘটনের শিকার হলে কঠিন হয়ে যেতে পারে তাদের কোয়ার্টার ফাইনালের হিসাব-নিকাশ। সেই ঝামেলায় একেবারেই যেতে চায় না অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দল। শুরুর হারটা ভুলে তাই এই ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়াতে চান নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দলের একমাত্র হাফ সেঞ্চুরিয়ান লাহিরু থিরিমান্নে, ‘আমাদের সামর্থ্য দেখানোর সময় এটাই। আমাদের সেই যোগ্যতাও আছে, কারণ এই দল নিয়েই গত দুই বছরে আমরা অনেক ম্যাচ জিতেছি।’
শ্রীলঙ্কা এমন তেতে আছে বলেই আফগানদের দুশ্চিন্তাটা একটু বেশি। এমনিতেই দুই দলের শক্তির বিস্তর ব্যবধান। এখন পর্যন্ত দুই দল ওয়ানডেতে একবারই মুখোমুখি হয়েছে, সেটা গত বছর মার্চে ঢাকায় এশিয়া কাপে। ওই ম্যাচে শ্রীলঙ্কার সামনে দাঁড়াতেই পারেনি আফগানিস্তান, হেরেছিল ১২৯ রানে। তবে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে আসা দলটার আসলে হারানোর কিছু নেই। বিশ্বসেরার লড়াইয়ে বলার মতো যেকোনো পারফরম্যান্সই যোগ হবে আফগানদের প্রাপ্তির খাতায়। বাংলাদেশের কাছে উড়ে যাওয়ার পরও তাই ইতিবাচক মানসিকতা নিয়েই পরের ম্যাচে খেলার আশাবাদ আফগান অধিনায়ক মোহাম্মদ নবীর, ‘শুরুটা ভালো হয়নি, তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আমরা আরও ভালো খেলার চেষ্টা করব।’ আফগান ক্রিকেট বোর্ডের ওয়েবসাইটে এক জরিপেও সমর্থকদের সেই আশার প্রতিফলন। শতকরা ৫৮ ভাগ আফগান ক্রিকেট সমর্থক মনে করেন, বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে যেতে না পারলেও দু-একটা অঘটন ঠিকই ঘটাবে আফগানিস্তান। ডানেডিনে একটা অঘটন আজ ঘটে কি না, কে বলতে পারে!

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন