বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে বিশ্বকাপ থেকে আগেই ছিটকে গেছেন সাকিব। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচের পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও খেলতে পারবেন না তিনি। অন্যদিকে টুর্নামেন্টে এখনো টিকে থাকা আফগানিস্তানের সুপার টুয়েলভেই বাকি আরও দুটি ম্যাচ। ফলে সাকিবের শীর্ষ স্থান এককভাবে নিজের করে নেওয়ার বড় সুযোগই আছে আফগান অধিনায়ক নবীর জন্য।

গত ২৭ অক্টোবর নবীকে টপকেই টি-টোয়েন্টি অলরাউন্ডারের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে উঠেছিলেন সাকিব। বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে দারুণ পারফরম্যান্সের পর এই উন্নতি হয়েছিল তাঁর। তবে সুপার টুয়েলভে ঠিক নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি তিনি। চোটের কারণে ছিটকে যাওয়ার আগে এ পর্বে ৩ ম্যাচ মিলিয়ে সাকিব করেছেন ২৩ রান, সঙ্গে নিয়েছেন ২ উইকেট।

default-image

ব্যাটিংয়ে শীর্ষ পঞ্চাশে বাংলাদেশ থেকে আছেন শুধু মোহাম্মদ নাঈম (১৮) ও মাহমুদউল্লাহ (২৮)। নাঈম আগের অবস্থান ধরে রাখলেও অবনতি হয়েছে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর। বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়েও অবনতি হয়েছে বাংলাদেশ বোলারদের। বিশ্বকাপে নিজের শেষ ম্যাচ খেলার দিন গত ২৯ অক্টোবর সাত নম্বরে ছিলেন সাকিব, মেহেদী ছিলেন ১১ নম্বরে, মোস্তাফিজের অবস্থান ছিল ১২ নম্বরে।

সর্বশেষ প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিংয়ে ১২ নম্বরে নেমে গেছেন সাকিব। মেহেদীর অবস্থান এখন ১৪ নম্বরে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে না খেলা মোস্তাফিজ আছেন ১৬ নম্বরে।

বাবর ও হাসারাঙ্গা পেয়েছেন বিশ্বকাপে দারুণ পারফরম্যান্সেরই পুরস্কার। এখন পর্যন্ত ৪ ইনিংসে ৬৬ গড় ও ১২৪.৫২ স্ট্রাইক রেটে ১৯৮ রান করেছেন বাবর। গত সপ্তাহে দুই নম্বরে ছিলেন বাবর, ১৪ রেটিং পয়েন্ট উন্নতি হয়েছে তাঁর (৮৩৪)। অন্যদিকে ম্যালানের রেটিং পয়েন্ট ৮৩১ থেকে নেমে গেছে ৭৯৮-এ।

বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৭ ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়েছেন হাসারাঙ্গা, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করেছেন হ্যাটট্রিকও। শামসি দুইয়ে নেমে গেলেও উন্নতি হয়েছে তাঁর সতীর্থ ফাস্ট বোলার আনরিখ নর্কিয়ার, ১৮ ধাপ এগিয়ে সাতে উঠে এসেছেন তিনি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন