সাকিব আল হাসান দেশে ফিরছেন এই সপ্তাহে
সাকিব আল হাসান দেশে ফিরছেন এই সপ্তাহে প্রথম আলো ফাইল ছবি

আইসিসির নিষেধাজ্ঞা কেটে গেছে। সাকিব আল হাসানের সময় হয়েছে মাঠে ফেরার। এ মাসেই বঙ্গবন্ধু টি–টোয়েন্টি কাপ দিয়ে ফেরার কথা বাঁহাতি অলরাউন্ডারের। প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরতে সাকিব যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকায় আসছেন পরশু রাতে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে তাঁর সঙ্গে আসছেন মা শিরিন আকতারও।

বিজ্ঞাপন

সাকিবের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, মায়ের সঙ্গে বাংলাদেশ অলরাউন্ডার পরশু বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দুইটায় কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে ফিরবেন ঢাকায়। দেশে ফিরে কোয়ারেন্টিন শেষে মাঠে ফিরতে পারেন নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে। তত দিনে বঙ্গবন্ধু টি–টোয়েন্টি কাপে দল নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার কথা তাঁর। প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরার আগে সাকিবকে অবশ্য দিতে হবে ফিটনেস পরীক্ষা।

default-image

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ ও লঙ্কান প্রিমিয়ার লিগ (এলপিএল) খেলার লক্ষ্যে সাকিব প্রায় ছয় মাসের বিরতিতে ঢাকায় এসেছিলেন সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। দেশে ফিরেই নিজেকে প্রস্তুত করতে তিনি চলে যান বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি)। সেখানে প্রায় এক মাস চলেছে তাঁর কঠোর অনুশীলন। অনুশীলনে তাঁকে সহায়তা করেছিলেন শৈশবের দুই কোচ নাজমুল আবেদীন ও মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

কোয়ারেন্টিন জটিলতায় শেষ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা সফরটা হয়নি। তাঁর এলপিএলে খেলার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। নাজমুল জানান, সাকিব ফিরবেন নভেম্বর–ডিসেম্বরে বঙ্গবন্ধু টি–টোয়েন্টি কাপ দিয়ে। যেহেতু আন্তর্জাতিক সিরিজে ফেরা সম্ভব নয়, সাকিব তাই সেপ্টেম্বরের শেষেই ফিরে যান যুক্তরাষ্ট্রে নিজের পরিবারের কাছে।

বিজ্ঞাপন

লম্বা বিরতিতে ক্রিকেটে ফেরাটা সব সময় চ্যালেঞ্জিং। এই চ্যালেঞ্জে সাকিব ভালোভাবে উতরে যাবেন বলে আশাবাদী নাজমুল আবেদীন। কয়েক দিন আগে প্রথম আলোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘সে খেলার জন্য প্রস্তুত। সাকিব বিকেএসপিতে এক মাসের মতো অনুশীলন করেছে। ওর সেরা পারফরম্যান্স ছিল ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে। ওখানে তার খেলার যে মান ছিল, এটা খুব পরিষ্কার যে ওই মান থেকে সে আর নামতে চায় না। ভালো খেলার জন্য, সম্ভব হলে আগের চেয়েও ভালো খেলার জন্য নিজেকে দারুণভাবে উজ্জীবিত রেখেছে সাকিব।’

সালাউদ্দিন যোগ করেছেন, ‘আমার মনে হয় ম্যাচ না খেলার ঘাটতি সাকিবের থাকবে না। আমরা মাঝ উইকেটে যে মাত্রায় অনুশীলন করেছি, সেটাই সে ঘাটতি পুষিয়ে দেবে। আর ম্যাচ খেলার যে অভিজ্ঞতা, সেটা একজন ক্রিকেটার কখনোই ভোলে না। ব্যাটিং, বোলিংয়ের ছন্দ ফিরতে হয়তো দু-তিন ম্যাচ সময় লাগতে পারে, কিন্তু খেলাটার মধ্যে ঢুকে যেতে সাকিবের মতো খেলোয়াড়ের একমুহূর্ত সময় লাগার কথা নয়।’
প্রস্তুতির আরও কিছু অংশ বাকি। সেটি শেষ করে নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে সাকিব নেমে পড়বেন আবারও দ্যুতি ছড়াতে।

মন্তব্য পড়ুন 0