বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সেটি তো ম্যাচ শুরুর আগে নিশ্চিত করে বলার সুযোগ নেই। তবে বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য এ ক্ষেত্রে একটা সুখবর হতে পারে এই যে স্থগিত হয়ে যাওয়ার আগে এবারের আইপিএলের প্রথম পর্বে রাজস্থানের হয়ে মোস্তাফিজের পারফরম্যান্স ছিল দারুণ।

এ ছাড়া সুস্থ, ফিট ও খেলার মতো অবস্থায় থাকলে রাজস্থানের একাদশে যে তিন বিদেশির ‘অটোমেটিক চয়েস’ হওয়ার কথা ছিল, ইংল্যান্ডের সেই তিন ক্রিকেটার জফরা আর্চার, বেন স্টোকস ও জস বাটলারের কেউই এবার আইপিএলের দ্বিতীয় অংশে নেই!

সে ক্ষেত্রে চার বিদেশির একজন হিসেবে মোস্তাফিজের খেলার সম্ভাবনা আরও বাড়ছে। পাশাপাশি পারফরম্যান্স বিবেচনায় নিলে মোস্তাফিজের একাদশে সুযোগ না পাওয়াই হবে বিস্ময়ের। নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের মাটিতে সবশেষ দুই সিরিজেও দারুণ বোলিং করেছেন মোস্তাফিজ।

অবশ্য আর্চার-স্টোকস-বাটলার না থাকলেও সে জায়গায় বিকল্প হিসেবে এভিন লুইস, ডেভিড মিলার, লিয়াম লিভিংস্টোন, ক্রিস মরিসরা তো আছেন। ধারণা করা হচ্ছে, লুইস, মিলার ও মরিসের পাশাপাশি চতুর্থ বিদেশি হিসেবে বাংলাদেশের মোস্তাফিজকেই খেলাবে রাজস্থান।

তবে গত আগস্টে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ১০০ বলের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ‘দ্য হানড্রেড’-এ লিভিংস্টোন বিধ্বংসী ব্যাটিং করেন। রাজস্থান ব্যাটিংয়ের গভীরতা বাড়াতে চাইলে যদি লিভিংস্টোনকে নেয়, সে ক্ষেত্রে বোলিংয়ে মোস্তাফিজকে নেবে কি না, সে নিয়ে কিছুটা সংশয় থাকেই। ওদিকে পিচ স্পিনসহায়ক হলে সে ক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার তাবরেজ শামসিও বিদেশি কোটায় মোস্তাফিজের বিকল্প হয়ে উঠতে পারেন।

তবে ভারতীয় দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে রাজস্থানের প্রস্তাবিত একাদশটা দেখাচ্ছে এমন—

সঞ্জু স্যামসন, এভিন লুইস, মানান ভোহরা, ডেভিড মিলার, শিবম দুবে, রাহুল তেওয়াতিয়া, ক্রিস মরিস, শ্রেয়াস গোপাল, জয়দেব উনাদকট, মোস্তাফিজুর রহমান, চেতন সাকারিয়া।

default-image

ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোর সম্ভাব্য একাদশেও মোস্তাফিজ আছেন। তবে সেখানে ওপেনিং এভিন লুইসের সঙ্গী হিসেবে জশস্বী জসওয়ালের নাম রাখা হয়েছে। ৪ নম্বরে মিলারের বদলে রাখা হয়েছে লিভিংস্টোনকে। দুবের বদলে রিয়ান পরাগ ও গোপালের জায়গায় কার্তিক ত্যাগির খেলার সম্ভাবনার কথা বলা হচ্ছে। আর শেষ বোলার হিসেবে সাকারিয়া ও উনাদকটের মধ্যে লড়াইয়ের কথা বলা হচ্ছে।

ক্রিকইনফোর চোখে রাজস্থানের সম্ভাব্য একাদশ: এভিন লুইস, যশস্বী জসওয়াল, সঞ্জু স্যামসন, লিয়াম লিভিংস্টোন, রিয়ান পরাগ, শিবম দুবে, ক্রিস মরিস, রাহুল তেওয়াতিয়া, কার্তিক ত্যাগি, মোস্তাফিজুর রহমান ও চেতন সাকারিয়া/ জয়দেব উনাদকট।

তবে দুটি পরিসংখ্যান হয়তো রাজস্থানের থিংকট্যাঙ্ককে মোস্তাফিজকে খেলানোর সিদ্ধান্ত নিতে উদ্বুদ্ধ করবে -

এক. দুবাইয়ের উইকেটে পেসাররা ইনিংসে গড়ে ৩.৭৬ উইকেট করে পেয়েছেন, স্পিনাররা পেয়েছেন ১.৬৪টি করে।

দুই, ডেথ ওভার, অর্থাৎ ১৭ থেকে ২০ ওভার সময়ে মোস্তাফিজ ওভারপ্রতি গড়ে রান দেন (ইকোনমি রেট) ৮.৮১ করে, যা ডেথ ওভারে আইপিএলে সেরা ইকোনমি রেটগুলোর একটি। ডেথ ওভারে মোস্তাফিজের এ ইকোনমি রেট তর্কসাপেক্ষে এ মুহূর্তে ভারতের সেরা বোলার যশপ্রীত বুমরার (৮.৮৭) চেয়েও কম।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন