মুম্বাইয়ের বিপক্ষে আজ দারুণ বল করেন সাকিব।
মুম্বাইয়ের বিপক্ষে আজ দারুণ বল করেন সাকিব।ছবি:আইপিএল

কলকাতা নাইট রাইডার্সের প্রথম ম্যাচে ওভারপ্রতি গড়ে ৯.৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমেছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। সাকিব আল হাসান এই চাপের মধ্যে ওভারপ্রতি গড়ে ৮.৫০ রান করে দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছিলেন। খুব ভালো বোলিং বলা যাবে না।

কিন্তু একেবারে খারাপও না। আইপিএল মৌসুম শুরুর ম্যাচ, উইকেট ও কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে একটু সময়ও তো লাগে! সাকিব এই মানিয়ে নেওয়ায় পটু বলেই পারফর্ম করতে জানেন বিশ্বের যে কোনো কন্ডিশনে, যে কোনো উইকেটে। আজ যেমন কলকাতার দ্বিতীয় ম্যাচেই বোঝা গেল, ধীরে ধীরে আরও ক্ষুরধার হচ্ছে বাংলাদেশ অলরাউন্ডারের বোলিং।

আজ চেন্নাইয়ের পি চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে অবশ্য সাকিবের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের একটা উপলক্ষও ছিল। সেটি দেখা গেল, কলকাতা টস জিতে ফিল্ডিংয়ে নামার আগে।

বিজ্ঞাপন

কলকাতার কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালামের কাছ থেকে বিশেষ এক টুপি বুঝে নেন সাকিব। আইপিএলের এই ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটির হয়ে আজ ৫০তম ম্যাচ খেলার মাইলফলক ছুঁয়ে ফেললেন তিনি। সে জন্যই সতীর্থদের করতালির মাঝে সাকিবকে বিশেষ টুপিটা বুঝিয়ে দেন ম্যাককালাম।

এরপর মাঠে নেমে নিয়ন্ত্রিত বোলিং-ই করেছে কলকাতা। তার মধ্যে সাকিব সেরা—৪ ওভারে ২৩ রানে ১ উইকেট। আজ কলকাতার কোনো বোলার কিপটেমিতে সাকিবকে ছাপিয়ে যেতে পারেননি। মুম্বাইও বড় স্কোর গড়তে পারেনি। ১৫২ রান তুলে ইনিংসের শেষ বলে অলআউট দলটি।

বরং বলা যায়, বিপদ টের পেলেই সাকিবকে আক্রমণে এনেছেন কলকাতা অধিনায়ক এউইন মরগান। ৩ ওভার শেষে মুম্বাইয়ের স্কোর ছিল ১ উইকেটে ২৪। আগের ওভারে ১৪ রান দেন কলকাতার স্পিনার হরভজন সিং। মরগান বুঝতে পেরেছিলেন, বোলারদের ওপর চড়ে বসার সময় হয়েছে মুম্বাইয়ের রোহিত শর্মা ও সুর্যকুমার যাদবের। তাই পরের ওভারেই সাকিবকে আক্রমণে এনে তাঁর প্রতি আস্থার পরিচয় দেন ইংল্যান্ড তারকা। ওই ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে অধিনায়কের আস্থার দারুণ প্রতিদান দেন সাকিব।

চিপকের উইকেট থেকে আজ বেশি বাঁক পাননি সাকিব। সেটি তাঁর শক্তির জায়গাও না। ব্যাটসম্যান বুঝে মাপা লেংথে বল করে গেছেন তিনি। এভাবে ইনিংসের সপ্তম ওভারে দেন মাত্র ৬ রান। এর পরের ওভারে প্রসিধ কৃষ্ণ ১৬ রান দেওয়ায় আবারও চাপে পড়েন কলকাতা অধিনায়ক মরগান। আর তাই নবম ওভারে আবারও ডাক পড়ল সাকিবের।

রোহিত ও সূর্যকুমারকে সামলে রেখে তিনি দিলেন মাত্র ৬ রান। সাকিব উইকেটের দেখা পেয়েছেন তাঁর শেষ ওভারে এসে। ইনিংসে ১১তম ওভারে তাঁর দ্বিতীয় বলে ব্যাটের কানায় লেগে একটি চার হয়। সাকিবকে আজ এই একটি চারই মারতে পেরেছে মুম্বাই। পরের বলেই আকাশে বল তুলে ক্যাচ দিয়ে সাকিবকে উইকেট উপহার দেন সূর্যকুমার (৩৬ বলে ৫৬)। শেষ ওভারে ৭ রানে ১ উইকেট নিয়ে নিজের বোলিংয়ের কোটা শেষ করেন সাকিব।

ভারতের খ্যাতিমান ধারাভাষ্যকার ও বিশ্লেষক হার্শা ভোগলে এরপরই টুইট করেন, ‘সাকিবের আরেকটি চিরচেনা পারফরম্যান্স। কী এমন করেছে, এটা ভাবতে গিয়ে দেখবেন ৪-০-২৩-১।’ চেন্নাইয়ের আজ কন্ডিশনও সাকিবের পক্ষে ছিল।

default-image

সম্ভবত শিশির কম পড়ায় টস জিতে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় কলকাতা। অর্থাৎ বল ধরতে অসুবিধা হয়নি স্পিনারদের, সাকিবের মতো আঙুলের স্পিনারদের ক্ষেত্রে যা সহায়ক। ঝুলিয়ে কিংবা একটু জোরের ওপর জায়গামতো ডেলিভারিগুলো ফেলতে পেরেছেন সাকিব।

মুম্বাই অধিনায়ক ও ওপেনার রোহিত শর্মা আজ ১৬তম ওভার পর্যন্ত উইকেটে থেকেও দলের রানের গতি সেভাবে বাড়াতে পারেননি। ৩২ বলে ৪৩ রান করে প্যাট কামিন্সের শিকার হন তিনি। ১৫তম ওভার শেষে মুম্বাইয়ের স্কোর ছিল ৩ উইকেটে ১১৪। শেষ ৩০ বলে মাত্র ৩৮ রান তুলতে পেরেছে মুম্বাই। কলকাতার হয়ে ১৫ রানে ৫ উইকেট নেন আন্দ্রে রাসেল।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন