default-image

প্রথম ম্যাচে আমরা পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। তবে কৃতিত্ব নিউজিল্যান্ডকেই দিতে হবে, ওরা সুযোগ কাজে লাগিয়ে সেরা ক্রিকেটই খেলেছে। জয়টা তাদের প্রাপ্যই ছিল। কয়েক দিন পর ইংল্যান্ডকে ধ্বংস করাটাই বলে দিচ্ছে দল হিসেবে ওরা এখন কত শক্তিশালী। ওই ম্যাচটা আমাদের সাম্প্রতিক ফর্মকেও ব্যাখ্যা করছে। আমরা এখন প্রত্যাশামতো বেশি ম্যাচ জিততে পারিনি, তবে ওদের মতো দারুণ শক্তিশালী দলের বিপক্ষে ওদেরই মাঠে আট ম্যাচ খেলা সহজ নয়। খুব চ্যালেঞ্জিং কয়েকটা সপ্তাহ গেল। আশা করছি এই অভিজ্ঞতাগুলোর সুফল সামনের দিনগুলোয় পাওয়া যাবে।
আমরা এখন কঠোর পরিশ্রম করে সবকিছু ঠিকঠাক করার চেষ্টা করছি। কয়েকজন মূল খেলোয়াড় চোট থেকে ফিরেছে এটা মাথায় রেখেই আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। দুই পেসার লাসিথ মালিঙ্গা ও সুরঙ্গা লাকমল এবং অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের চোট কাজটাকে কঠিন করে দিয়েছে। ফিল্ডিংয়ে আমাদের অবশ্যই উন্নতি করতে হবে। ফিল্ডিং পারফরম্যান্স এখনও পর্যন্ত হতাশার। নিউজিল্যান্ড ম্যাচে ওদের যারাই ফিফটি পেরিয়েছে তারাই সুযোগ দিয়েছে।
টুর্নামেন্টটা এখন পর্যন্ত ভালোই হয়েছে। তবে আমাদের গ্রুপের দলগুলো শেষ পর্যন্ত কে কোথায় থাকবে সেটা বলে দেওয়ার সময় এখনো আসেনি। নিউজিল্যান্ডকে গোছালো মনে হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়া খুবই শক্তিশালী, তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে মাত্র একটি পয়েন্ট পাওয়ায় ওরা নিশ্চিতই হতাশ। আর ইংল্যান্ড তো হাবুডুবু খাচ্ছে।
আজকের ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাই হওয়ার কথা। কাগজে-কলমে দক্ষিণ আফ্রিকা খুবই শক্তিশালী, ধোনিদের জন্য এটা কঠিন এক পরীক্ষাই হবে। ওরা (ভারত) জিতে গেলে শীর্ষে উঠে যাবে। গুরুত্বপূর্ণ দুই ম্যাচ জিতে শীর্ষে ওঠাটা আনন্দময়ই হওয়ার কথা। (গেমপ্ল্যান)

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন