বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

নিউজিল্যান্ডের ফেরার ঘোষণা দেওয়ার আগে আজ সকালে হঠাৎ কৌতূহল বাড়িয়ে দেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট। প্রথমে টুইটে জানাল, ‘অনেক বড় একটা খবর জানাতে আমরা প্রস্তুত। কী হতে পারে সেই ঘোষণা, কোনো অনুমান করতে পারেন?’

ব্যস, জল্পনা-কল্পনার শুরু হয়ে গেল! কেউ কৌতুকের সুরে বলা শুরু করলেন, ‘বুঝেছি, জিম্বাবুয়ের সঙ্গে আরেকটা সিরিজ খেলবে পাকিস্তান।’ কারও ধারণা ছিল, করোনার এ সময়ে এত দিন স্টেডিয়ামে দর্শক ঢোকায় কিছু বিধিনিষেধ থাকলেও এখন হয়তো গ্যালারি শতভাগ পূর্ণ রাখার ঘোষণা আসবে।

একজন তো পিসিবিকে খোঁচাতে ১৯৯৬ সালের একটা ঘটনা টেনে আনলেন। ২৬ বছর আগে সেবার রাওয়ালপিন্ডিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের টেস্ট শুরু হতে ২০ মিনিট দেরি হয়েছিল। সেটির কারণ জানাতে টিভিতে ঘোষণা লেখা ওঠে, ‘পিসিবি টেস্টের জন্য বল সরবরাহ করতে ভুলে গেছে বলে টেস্ট শুরু হতে দেরি হচ্ছে।’

সেই ঘোষণার ছবি দিয়ে ভারতীয় সেই টুইটার ব্যবহারকারী পিসিবিকে খোঁচা মেরে লিখলেন, ‘এবার তাহলে পিসিবি ঠিকমতো বল সরবরাহ করবে!’

পাকিস্তানের অনেকের ধারণা ছিল, এবার ঘোষণা আসবে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ পিএসএলে নতুন দল আগমনের। কদিন ধরেই শোনা যাচ্ছে, পিএসএলে দলের সংখ্যা বাড়তে যাচ্ছে।

কিন্তু কোনো ধারণাই মিলল না। শেষ পর্যন্ত ঘণ্টাখানেক কৌতূহল জাগিয়ে রাখার পর এল পিসিবির ঘোষণা। বাবর আজম, মোহাম্মদ রিজওয়ান, শাহিন আফ্রিদিদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি হয়ে আসার মতো এক ঘোষণাই দিল পিসিবি।

এবার তাদের টুইটে লেখা, ‘প্রস্তুত হোন! ২০২২-২৩ মৌসুমের ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে দুই টেস্ট ও তিন ওয়ানডের জন্য পাকিস্তান সফরে আসতে যাচ্ছে নিউজিল্যান্ড। এরপর সাদা বলের ক্রিকেটে ১০টি ম্যাচ খেলার জন্য আবার ফিরবে তারা। দারুণ রোমাঞ্চকর এক খবর, তাই না?’

তা তো বটেই! অক্টোবরে নিউজিল্যান্ড সফর বাতিল করে ফিরে যাওয়ার পর ইংল্যান্ডও জানিয়ে দেয়, অক্টোবরে তাদেরও পাকিস্তানে যাওয়ার কথা থাকলেও সেই সফর বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

default-image

২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কা দলের বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর প্রায় এক দশক নিজেদের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না দেখা পাকিস্তানের জন্য নিউজিল্যান্ড আর ইংল্যান্ডের দুই ঘোষণা ছিল বড় ধাক্কা। আবার পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আয়োজন নিয়ে সংশয় তৈরি হয় তাতে।

কিন্তু অক্টোবর-নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মাঠে চোখধাঁধানো পারফরম্যান্স ছিল পাকিস্তানের, এদিকে মাঠের বাইরে রমিজ রাজার অধীন নতুন বোর্ড দেখাল ক্রিকেটের কূটনৈতিক পরীক্ষায় দারুণ সাফল্য। বিশ্বকাপের পর ঘোষণা আসে, ইংল্যান্ড দল পাকিস্তান সফরে যাবে। এর কিছুদিন পর অস্ট্রেলিয়ারও পাকিস্তান সফরে যাওয়ার ঘোষণা আসে।

এখন নিউজিল্যান্ডের পাকিস্তান সফরে যাওয়ার ঘোষণার মধ্য দিয়ে নিশ্চিত হলো ২০২২ সালের মার্চ থেকে ২০২৩ সালের এপ্রিলের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মতো তিন পরাশক্তির বিপক্ষে নিজেদের মাটিতে ৮টি টেস্ট, ১১টি ওয়ানডে ও ১৩ টি-টোয়েন্টি খেলবে পাকিস্তান!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন