বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এমনিতে সেঞ্চুরিয়নে দক্ষিণ আফ্রিকা এর আগে ২৬ ম্যাচ খেলে হেরেছিল শুধু ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুটি টেস্ট—যার সর্বশেষটি ছিল ২০১৪ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ভারতও এর আগে এখানে দুটি টেস্ট খেলে হেরেছিল দুটিতেই। তবে এবার নিজেদের টানা জয়ের রেকর্ডটা ধরে রাখতে গেলে প্রোটিয়াদের গড়তে হতো ইতিহাস। এ মাঠে যে এর আগে ২৪৯ রানের বেশি তাড়া করে জেতেনি কোনো দল। কাল চতুর্থ দিন শেষ করার সময়ে ৯৪ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলায় দক্ষিণ আফ্রিকার কাজটা হয়ে পড়েছিল আরও কঠিন।

অবশ্য আশা হয়ে ছিলেন ডিন এলগার। চতুর্থ দিনই অর্ধশতক পূর্ণ করে ফেলা দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক আজ ব্যক্তিগত ৬৩ রানে জীবনও পেয়েছিলেন। মোহাম্মদ শামিকে ফিরতি ক্যাচ দিয়েছিলেন, তবে মোটামুটি সহজ ক্যাচটা নিতে পারেননি ভারতের ফাস্ট বোলার। এলগার সে ওভারেই একটা চার মেরে শামির হতাশা বাড়িয়েছিলেন আরও।

default-image

তবে শেষ পর্যন্ত সুযোগটা কাজে লাগিয়ে খুব বেশিদূর যেতে পারেননি এলগার। আগেরদিন আগুন ঝরানো বোলিং করা যশপ্রীত বুমরা রাউন্ড দ্য উইকেট থেকে বল করেছিলেন, অফ স্টাম্পের দিকে বেশ খানিকটা সরে খেলতে গিয়ে বলের রেখাই মিস করেছেন এলগার। হয়েছেন এলবিডব্লিউ, রিভিউ নিয়েও বাঁচেননি। আউট হওয়ার আগে করেছেন ৭৭ রান।

দিনের প্রথম ঘণ্টায় দক্ষিণ আফ্রিকা ওই একটি উইকেট হারানোর পর টেম্বা বাভুমা ও কুইন্টন ডি কক টিকে ছিলেন আরও ৮.৪ ওভার। কিন্তু এরপর মোহাম্মদ সিরাজের বল স্টাম্পে টেনে এনে আউট হয়েছেন ২৮ বলে ২১ রান করা ডি কক। মধ্যাহ্নবিরতির আগে উইয়ান মুল্ডারকে ফিরিয়েছেন শামি। ম্যাচজুড়েই দুর্দান্ত বোলিং করে যাওয়া শামির দারুণ সিম পজিশনে কট-বিহাইন্ড হয়েছেন মুল্ডার।

default-image

বিরতির পর দক্ষিণ আফ্রিকাকে গুটিয়ে দিতে খুব বেশি সময় নেয়নি ভারত। ১২ বলের ব্যবধানেই শেষ ৩ উইকেট হারিয়েছে তারা। মার্কো ইয়ানসেন উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে হয়েছেন ম্যাচে শামির অষ্টম শিকার। পরের ওভারে রবিচন্দ্রন অশ্বিন পরপর দুই বলে ফিরেছেন কাগিসো রাবাদা ও লুঙ্গি এনগিডি।

৩ জানুয়ারি জোহানেসবার্গে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে ভারত তাই যাবে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকায় সিরিজ জয়ের দারুণ সম্ভাবনা নিয়ে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন