অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের সেঞ্চুরিও জেতাতে পারেনি রাজস্থান রয়্যালসকে।
অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের সেঞ্চুরিও জেতাতে পারেনি রাজস্থান রয়্যালসকে। ছবি: আইপিএল

আইপিএল অধিনায়ক হিসেবে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই ম্যাচ জেতানো সেঞ্চুরি—রাজস্থান রয়্যালসের সঞ্জু স্যামসন এমন স্বপ্নই হয়তো দেখেছেন। অল্পের জন্য মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে সেই স্বপ্নটাই সত্যি হলো না। আইপিএল ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরিতে ২২২ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে রাজস্থান হেরেছে ৪ রানে। ১১৯ রানের অবিশ্বাস্য ইনিংস খেলেও শেষ পর্যন্ত হারই জুটেছে স্যামসনের।

শেষ ২ বলে জয়ের জন্য রাজস্থানের দরকার ছিল ৫ রান। পঞ্চম বলটাকে লং অফে পাঠিয়েও কোনো রান নিলেন না স্যামসন। সমীকরণ তখন ১ বলে ৫ রান। চার মারলে সুপার ওভার, ছক্কায় ম্যাচ জয়। অতি আত্মবিশ্বাসী স্যামসন পেলেন না কোনোটিই। অর্শদীপ সিংয়ের করা ওয়াইড-লাইন ইয়র্কার শেষ বলটি ছক্কা হতে হতেও হয়নি।

স্যামসন যেই শটটি খেলে পুরো ইনিংসের সিংহভাগ বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন, সেই শট খেলতে গিয়েই ঠিক কাভার বাউন্ডারিতে দীপক হুদার হাতে ক্যাচ দেন। ৬৩ বলে ১২টি চার ও ৭টি ছক্কায় সাজানো ১১৯ রানের দুর্দান্ত ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে সেখানেই।

বিজ্ঞাপন
default-image

মুম্বাইয়ের মাঠে বড় রান হয়। সেই রান তাড়াও হয়। কিন্তু আগে ব্যাট করা পাঞ্জাবের ২২১ রান তাড়া করতে ভাগ্য দরকার। সঙ্গে দরকার টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের বড় ইনিংস। স্যামসন আজ দুটোই পেয়েছেন। পাঞ্জাব ফিল্ডাররা তিনে নামা স্যামসনের ক্যাচ দুইবার ছাড়েন। বেন স্টোকস, জস বাটলাররা ব্যর্থ হলেও সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইনিংস বড় করেন স্যামসন। বাটলার, শিবম দুবে, রিয়ান পরাগরা ছোট ছোট ইনিংসে স্যামসনকে সঙ্গ দিয়েছেন।

কিন্তু দলকে পাঞ্জাবের ২২১ রানের কাছাকাছি নেওয়ার কাজটা করেছেন মূলত স্যামসনই। তবে শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হারিয়ে ২১৭ রানেই থামতে হয় তাঁকে। ওভারপ্রতি ১২ রান রেটের ম্যাচে পাঞ্জাব পেসার অর্শদীপ ছিলেন দুর্দান্ত। ৪ ওভারে মাত্র ৩৫ রান (৮.৮০ ইকোনমি রেট) দিয়ে তিনি নিয়েছেন ৩ উইকেট।

default-image

ম্যাচটি ছিল বাংলাদেশি পেসার মোস্তাফিজুর রহমানের প্রত্যাবর্তনের ম্যাচ। ৭ দিনের কোয়ারেন্টিনের পর এক দিনের অনুশীলনের পর আজ ম্যাচ খেলতে নামেন তিনি। আইপিএলে নতুন দল রাজস্থানের হয়ে মৌসুমের প্রথম ম্যাচেই অভিষেক হলো বাংলাদেশি বাঁহাতি পেসারের। কিন্তু অভিষেকটা কি ভালো হলো? আগে ব্যাট করা পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে মোস্তাফিজ রান দিয়েছেন অনেক, উইকেটও পাননি। তবে ঠিকমতো রিভিউ নিলে আর ফিল্ডাররা ভুল না করলে গোলাপি জার্সিতে মোস্তাফিজের অভিষেকটা অন্য রকম হতে পারত। শেষ পর্যন্ত ৪ ওভারে ৪৫ রান দিয়েছেন মোস্তাফিজ।

টসে হেরে আগে ব্যাট করা পাঞ্জাব ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে করেছে ২২১ রান। পাঞ্জাব অধিনায়ক লোকেশ রাহুলের ব্যাট থেকে আসে ৫০ বলে ৯১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। ৭টি চার ও ৫টি ছক্কায় সাজানো ছিল তাঁর ইনিংস। মাঝের ওভারগুলোতে ক্রিস গেইলের ৪০ ও হুদার ৬৪ রান পাঞ্জাবকে পৌঁছে দেয় রানের পাহাড়ে।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন