বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গতকাল প্রান্তিক নওরোজের শতকে ২৯৭ রান তুলেছিল বাংলাদেশ। আজও শতকের দেখা পেল দলের টপ অর্ডারের একজন। গতকালের ব্যর্থতা ভুলে ওপেনার মাহফিজুল ইসলাম আজ খেলেছেন ১১৯ বলে ১১২ রানের ইনিংস। ১২টি চারের সঙ্গে ৪টি চারের এই ইনিংসই বাংলাদেশের বড় সংগ্রহ নিশ্চিত করেছে।

বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়নি। প্রথম তিন ওভারে এসেছে মাত্র ৩ রান। তৃতীয় ওভারের শেষ বলে অন্য ওপেনার ইফতেখার হোসেন বিদায় নিয়েছেন। আইচ মোল্লাকে নিয়ে ৮৪ রানের জুটি গড়েছেন মাহফিজুল। এতে আইচের অবদান ২০।

default-image

৫৩ রানের তৃতীয় উইকেট জুটির পর ফিরে গেছেন চারে নামা আরিফুল ইসলামও।
তাহিজিবুল নেমে রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ১৯ বলে ২৫ রান করে দলের উইকেটরক্ষকও বিদায় নিয়েছেন ৩৪তম ওভারে। ৩৬তম ওভারে দলকে ১৯৭ রানে রেখে চলে যান মাহফিজুলও।

গতকালের নায়ক প্রান্তিকও টেকেননি ৫ বলের বেশি। এস এম মেহেরব হাসান ২৪ বলে ৪২ রানের ইনিংসে দলকে আড়াই শর কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু ৪২তম ওভারে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে মেহেরবের বিদায়ে আড়াই শর নিচেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় ছিল বাংলাদেশ। গত বিশ্বকাপ জেতা দলের সদস্য ও এবার অধিনায়কত্ব করা রাকিবুল ২১ বলে ২১ রান করে সে শঙ্কা দলকে ২৭৫ রানে নিয়ে গেছেন। অলআউট হওয়ার আগে শেষ উইকেট জুটি ১৬ রান এনে দিয়েছে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪৯ রানে অলআউট হওয়া কুয়েত যে ২৯২ রানের লক্ষ্য ছুঁতে পারবে না জানাই ছিল। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে আরেকটু প্রতিরোধ গড়েছে দলটি। ৮ ওভার বেশি খেলে আগের ম্যাচের চেয়ে ২০ রান করেছে। প্রথম ম্যাচের মতোই দলটির ওপেনার মিত ভাবসর এ ম্যাচেও একাই লড়লেন। প্রথম ম্যাচে ২৫ রান করা ভাবসর আজ ৪৩ রান করে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হয়েছেন। বাংলাদেশের পেসার রিপন মন্ডল ১০ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট। রাকিবের ২ উইকেট ৬ রানে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন