default-image
>গতকাল বুধবার খুলনা ক্লাবে সৌম্য সরকারের বিয়ের অনুষ্ঠানে ঘটেছে মোবাইল চুরি নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা।

খুলনা ক্লাবে গতকাল ছিল সৌম্য সরকারের বিয়ে। জাতীয় দলের এ তারকা ক্রিকেটারের শুভ পরিণয়ের অনুষ্ঠানটি ছিল পারিবারিক মিলনমেলাও। এক অপ্রীতিকর ঘটনা এ আনন্দ অনুষ্ঠানকে কিছুটা হলেও ম্লান করেছে। তবে শেষ পর্যন্ত আয়োজনের সবকিছু সুন্দরভাবেই সম্পন্ন হয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে। খুলনা ক্লাবে স্বাভাবিকভাবেই কাল ছিল প্রচণ্ড ভিড়। গেট দিয়ে বরযাত্রী ঢোকার সময় সৌম্যর বাবা কিশোরীমোহন সরকার, বরযাত্রী দীনবন্ধু মিত্রসহ মোট সাতজনের মোবাইল খোয়া যায়। এ সময় হারিয়ে যাওয়া মোবাইলে ফোন দিয়ে এক চোরকে হাতেনাতে ধরেও ফেলা হয়। তল্লাশি করে পাওয়া যায় আরও ৫টি ফোন। বিষয়টি খুলনা ক্লাব কর্তৃপক্ষকে জানান সৌম্যর ভাই প্রণব সরকার। তবে তিনি অভিযোগ করেন, খুলনা ক্লাবের লোকজন বিষয়টি নিজেদের ঘাড়ে নিয়ে তাঁদের ওপর চড়াও হন এবং অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন।

খুলনা ক্লাবের ডেপুটি সেক্রেটারি সেফগাতুল ইসলাম অবশ্য বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘চোর ধরা পড়ার পর আমরা চেয়েছিলাম তাদের আমাদের হাতে তুলে দেওয়া হোক। আমরাই তাদের পুলিশে দিতে চেয়েছিলাম।’

তবে সৌম্যর মামা স্বদেশ কুমার সরকার বলেন, ‘খুলনা ক্লাব কর্তৃপক্ষ প্রথমে বিষয়টি আমলে নিতে চায়নি।’

ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম বাহার বলেন, ‘মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে খুলনা ক্লাবের স্টাফ ও বরযাত্রীদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। সেখানে কাউকে মারধরের ঘটনা ঘটেনি, তবে ভিড়ের মধ্যে কারও গায়ে একটু ধাক্কা লাগতে পারে। দুই চোর থানায় আটক আছে। তাঁদের কাছ থেকে পাঁচটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। পরে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0